বৃহঃবার, ২৫-এপ্রিল-২০১৯ ইং | সকাল : ০৬:৫০:০৯ | আর্কাইভ

‘শিবির আদর্শ ও একাডেমিক কার্যক্রমে ছাত্রজনতার হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে’

তারিখ: ২০১৯-০২-০৪ ০৫:৪৩:০৩ | ক্যাটেগরী: রাজনীতি | পঠিত: ৬১ বার

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. মোবারক হোসাইন বলেছেন, ছাত্রশিবির তাঁর প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই ইসলামী আদর্শকে যথাযথভাবে ধারণ করে পথ চলছে। ছাত্রসমাজের মেধা-মননের বিকাশের লক্ষ্যে সবসময় যুগোপযোগী ও গঠনমূলক কর্মসূচি নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ৪২ বছরের পথ পরিক্রমায় ছাত্রশিবির তার গঠনমূলক, আদর্শিক ও একাডেমিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে এদেশের ছাত্রজনতার হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে।

তিনি সেমাবার রাজধানীর এক মিলনায়তনে ছাত্রশিবিরের শাখা দায়িত্বশীল সমাবেশে এ সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি সিরাজুল ইসলামের পরিচালনায় সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি আবদুল জব্বার ও বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন সদ্য বিদায়ী কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ ইয়াছিন আরাফাত। এসময় সকল সেক্রেটারীয়েট সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।  

শিবির সভাপতি বলেন, ছাত্রশিবির একদিকে যেমন ছাত্রজনতার প্রিয় সংগঠনে পরিণত হয়েছে তেমনি পরিণত হয়েছে বাতিলের চক্ষুশূলে। ফলে একটি ছাত্রসংগঠন হিসেবে ছাত্রশিবিরের উপর যে সর্বগ্রাসী জুলুম নির্যাতন চালানো হয়েছে তা নজীরবিহীন। দীর্ঘ পথ চলার প্রতিটি বাঁকে বাঁকে আমরা খুন, গুম, নির্যাতন, ষড়যন্ত্র, অপপ্রচার, তথ্য সন্ত্রাসের শিকার হয়ে চলেছি। রাষ্ট্রশক্তি এ সংগঠনকে ধ্বংস করে দেয়ার জন্য নির্মমতার সর্বোচ্চ নিকৃষ্ট নজির স্থাপন করেছে। কিন্তু সকল জুলুম, নির্যাতন ও ষড়যন্ত্রকে ছাত্রশিবির ধৈর্য্য, বিচক্ষণতা এবং গঠনমূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে মোকাবেলা করে আসছে। বাতিলের অপকর্ম আমাদের লক্ষ্য উদ্দেশ্যে থেকে চুল পরিমান বিচ্যুত করতে পারেনি। বরং পথ চলাকে আরও শানিত করেছে। ছাত্রশিবিরের গঠনমূলক কর্মকান্ডের প্রত্যক্ষ স্বাক্ষী এদেশের ছাত্রজনতা। ফলে রাষ্ট্রশক্তি যতই আমাদের নিয়ে ষড়যন্ত্র করুক না কেন জনগণের কাছে তা গ্রহণ যোগ্যতা পায়নি। বরং তাদের প্রতিটি আঘাত জনগণের কাছে ছাত্রশিবিরের গ্রহণযোগ্যতাকে বৃদ্ধি করেছে।

তিনি বলেন, গত ৪২বছর সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের নজীর স্থাপন করেই ছাত্রশিবির তার লক্ষ্য পানে এগিয়ে চলেছে। ইসলামের সুমহান আদর্শের আলোকে নেতৃত্ব গঠনের মাধ্যমে সমৃদ্ধ জাতি গঠনে ছাত্রশিবিরের গঠনমূলক আদর্শিক পথ চলা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ। আমরা অন্যায় অবিচারের কাছে কখনোই মাথা নত করব না বরং প্রতিটি প্রতিকূলতাকে সর্বোচ্চ ধৈর্য্য ও সাহসিকতা দিয়ে মোকাবেলা করে এগিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ।

৪২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে সেক্রেটারীয়েট বৈঠক থেকে সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. মোবারক হোসাইন।

৪ফেব্রুয়ারি থেকে ১০ ফ্রেব্রুয়ারী ২০১৯ পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে-

  সারাদেশে শাখা ও থানা পর্যায়ে আলোচনা সভা এবং বর্ণাঢ্য র‌্যালী।
  মেধাবী ও দরিদ্র ছাত্রদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ।
  মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের সংবর্ধনা ও শিক্ষাবৃত্তি প্রদান।
  অদম্য মেধাবীদের সহযোগিতা প্রদান।
  অনাথ ও দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ।
  কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান।
  ক্যাম্পাস পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান।
  সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দেয়ালিকা প্রকাশ।
  রচনা, কুইজ, বিতর্ক, বক্তৃতা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা।
  ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প, ব্লাড গ্রুপিং ও স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী।
  বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়।

শিবির সভাপতি কর্মসূচি সফল করার জন্য সর্বস্তরের নেতা কর্মীদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

তারিখ সিলেক্ট করে খুজুন