রবিবার, ২২-সেপ্টেম্বর-২০১৯ ইং | বিকাল : ০৪:০৩:৫২ | আর্কাইভ

খেলাপিতে হাবুডুবু খাচ্ছে ৯ ব্যাংক

তারিখ: ২০১৯-০৮-৩১ ০৯:০৬:০৫ | ক্যাটেগরী: অর্থনীতি | পঠিত: ১৫ বার

ঢাকা ভয়েস: নানা অনিয়ম-দুর্নীতি আর অব্যবস্থাপনায় যাচাই-বাছাই ছাড়াই বিতরণের কারণে বাড়ছে খেলাপি ঋণ। এতে বিপাকে রয়েছে সরকারি-বেসরকারি খাতের ৯ ব্যাংক। তাদের কারো মোট বিতরণ করা ঋণের ৪০-৯০ শতাংশ খেলাপি হয়ে গেছে, যার কারণে ঋণের নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন রাখতে ব্যর্থ হয়েছে অনেকে। কেউ কেউ মূলধনও ভেঙে খাচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যান থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে। ব্যাংকগুলোর মধ্যে চারটি সরকারি, চারটি বেসরকারি ও একটি বিদেশি খাতের বাণিজ্যিক ব্যাংক রয়েছে।

চলতি বছরের ৩০ জুন সর্বশেষ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংক, বিডিবিএল, জনতা ও সোনালী, বেসরকারি খাতের বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, পদ্মা ব্যাংক (সাবেক ফারমার্স ব্যাংক) ও এবি ব্যাংক এবং বিদেশি ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান (এনবিপি)।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে বেসিক ব্যাংক সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে। ব্যাংকটির বিতরণ করা ঋণের ৬০ দশমিক ৫০ শতাংশ খেলাপি। চলতি বছরের জুন শেষে বেসিক ব্যাংকের ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ৯ হাজার ১১৩ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ব্যাংকটির প্রভিশন ঘাটতিও সবচেয়ে বেশি, যার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৭৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা। বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেডের (বিডিবিএল) অবস্থাও নাজুক। প্রতিষ্ঠানটির এক হাজার ৫৯১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা বিতরণ করা ঋণের ৫৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ বা ৮৯০ কোটি টাকা খেলাপি।

পরিমাণের দিক থেকে সবচেয়ে বেশি খেলাপি ঋণ জনতা ব্যাংকে। প্রতিষ্ঠানটির বিতরণ করা মোট ঋণের ৪২ দশমিক ৯৬ শতাংশ বা ২০ হাজার ৯৯৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা খেলাপি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খেলাপি থাকা ব্যাংক হলো সোনালী ব্যাংক। এ ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১২ হাজার ১৯৫ কোটি টাকা বা ২৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ। ব্যাংকটির ঝুঁকিপূর্ণ ঋণের বিপরীতে নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) সংরক্ষণে ব্যর্থ হয়েছে। জুন শেষে সোনালী ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতির এক হাজার ৯৪২ কোটি ২০ লাখ।

সম্প্রতি আইএমএফ’র এশিয়া প্যাসিফিক বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাইসাকু কিহারা জানান, বাংলাদেশের অর্থনীতি এগুলেও ব্যাংক খাতে ধস নামছে। ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েই চলছে। খেলাপি ঋণ কমাতে টাইম-বাউন্ড কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। ব্যাংকিং সুপারভিশন বাড়াতে হবে, খেলাপিদের আইনি সহায়তা বন্ধ করতে হবে।

তিনি বলেন, খেলাপিদের পুনঃতফসিল ও পুনর্গঠন নীতিমালা আরও কঠোর করা দরকার। সবক্ষেত্রে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে। সরকারি ব্যাংকসহ সব ব্যাংকে সংস্কারের মাধ্যমে তাদের দক্ষতা বাড়াতে হবে বলে জানান আইএমএফ কর্মকর্তা।

তারিখ সিলেক্ট করে খুজুন

A PHP Error was encountered

Severity: Core Warning

Message: PHP Startup: Unable to load dynamic library '/opt/cpanel/ea-php56/root/usr/lib64/php/modules/pdo_mysql.so' - /opt/cpanel/ea-php56/root/usr/lib64/php/modules/pdo_mysql.so: cannot open shared object file: No such file or directory

Filename: Unknown

Line Number: 0

Backtrace: