বৃহঃবার, ২০-জুন-২০১৯ ইং | সন্ধা : ০৬:১৪:০৪ | আর্কাইভ

এই ব্যক্তিই এখন মোদি সরকারের মন্ত্রিসভায়

তারিখ: ২০১৯-০৬-০২ ০২:৩২:৪৬ | ক্যাটেগরী: আন্তর্জাতিক | পঠিত: ১১ বার

উসকো-খুশকো চুল। সাদামাটা চেহারা। শপথগ্রহণের পর থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছেন ভারতের ওড়িষ্যার বালাসোড়ের সাংসদ প্রতাপচন্দ্র সারঙ্গি।

ক্ষুদ্র, ছোট ও মধ্যম শিল্প, পশুপালন, দুগ্ধ ও মত্স্য দফতরের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন সারঙ্গি। ৬৪ বছরের সারঙ্গিকেই বলা হচ্ছে, ‘ওড়িষ্যার মোদী’।


 
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি নিউজের প্রতিবেদনে প্রকাশ, রামকৃষ্ণ মিশনে যোগ দিয়ে সন্ন্যাস নিতে চেয়েছিলেন সারঙ্গি। কিন্তু তাকে সামাজিক কাজ করতে নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর যোগ দেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘে। আজীবন অবিবাহিত থেকে সমাজ সেবা করে চলেছেন সারঙ্গি।

ওড়িয়া ও সংস্কৃত- দুটি ভাষাতেই তুখোড় সারঙ্গি। সাধারণ সাইকেলে চড়ে ঘুরে বেড়ান।

আদিবাসী এলাকায় স্কুল চালান সারঙ্গি। শুধু তাই নয়, বিধায়ক পেনশনের টাকাও খরচ করেন প্রান্তিক শিশুদের পড়াশুনোয়।


 
নির্বাচনী প্রচারে সাইকেলের বদলে ব্যবহার করেছেন অটো রিকশা। আর সামান্য প্রচারেই বিজেডি-র অন্যতম ধনী প্রার্থী শিল্পপতি রবীন্দ্রকুমার সেনাকে পরাজিত করেছেন সারঙ্গি।

এর আগে ২০০৪ সালে বিজেপির টিকিটে বিধানসভা জিতেছিলেন সারঙ্গি। ২০০৯ সালে নির্দল প্রার্থী হয়ে বিধানসভার নির্বাচন জেতেন।

সাধারণ ঘরে থাকেন। একেবারে সন্ন্যাসীর জীবনযাপন। বিজেপির গরিব প্রার্থীদের মধ্যে অন্যতম। তাই তাকে ওড়িষ্যার মোদী বলে ডাকা হচ্ছে। কিন্তু এতে আপত্তি সারঙ্গি। তার কথায়, এটা অতিশয়োক্তি। তিনি অতিসাধারণ মানুষ। নরেন্দ্র মোদীর প্রজ্ঞা অনেক বেশি।

তবে তার সাথে বিতর্কও লেগে রয়েছে। ১৯৯৯ সালে অস্ট্রেলিয়ান মিশনারি গ্রাহাম স্টেইনস ও তার দুই ছেলেকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারা হয়। ওই সময় ওড়িষ্যার বজরং দলের প্রধান ছিলেন সারঙ্গি। ২০০২ সালে সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুরের অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করেছিল ওড়িষ্যার পুলিশ।

তারিখ সিলেক্ট করে খুজুন