বৃহঃবার, ২০-জুন-২০১৯ ইং | বিকাল : ০৫:৪১:৪৯ | আর্কাইভ

খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা কর্তৃক চাল আত্মসাৎ। দুই জন গ্রেপ্তার। গুদামে সিলগালা।

তারিখ: ২০১৯-০৫-৩১ ০৮:৪৭:৩৫ | ক্যাটেগরী: সারা দেশ | পঠিত: ৪০ বার

মাদারীপুর জেলা প্র‌তি‌নি‌ধিঃ

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার  টেকেরহাটে খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা কর্তৃক চাল আত্মসাতের ঘটনায় হাতেনাতে ধরা পড়ায়  দুই পরিচ্ছন্নতা কর্মীকে  গ্রেপ্তার করে‌ছে পুলিশ। পরে  উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে দুটি গুদাম সিলগালা করা হয়। আজ শুক্রবার বিকালে টে‌কেরহা‌টে এ ঘটনা ঘ‌টে।

পুলিশ ও  প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা কাজী সালাউদ্দিন আজ শুক্রবার সকালে  দুই পরিচ্ছন্নতা কর্মী মোমরেজ শেখ ও সেলিম খানকে ১০ নম্বর গোডাউনে ঢুকিয়ে দিয়ে  বাইরে থেকে তালা মেরে দেয় এবং ওই দুইজন গুদামের ভিতরে বসে চালের বস্তায় বোঙ্গা (প্লাষ্টিকের পাইপ দিয়ে তৈরী)  মেরে চাল বের করে অন্য বস্তা জাত করে বাইরে বিক্রির জন্য মজুদ করছে -এমন খবর  বাইরে ছ‌ড়ি‌য়ে পড়‌লে গোডউনের সামনে ভির পড়ে  যায় । উপজেলা নির্বাহী অফিসার  সোহানা নাসরিন ও সহকারি কমিশনার সালমা পারভিন এ খবর পেয়ে গোডাউনে এসে ওই দুই পরিচ্ছন্নতা কর্মীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে বস্তা থেকে বোঙ্গা মেরে চাল বের করার কথা স্বীকার করে তারা। এছাড়াও  বৃহস্পতিবার রাতে ৯ নং গুদামে রক্ষিত অসংখ্য  বস্তা থেকে বোঙ্গা মেরে চাল বের করে বাইরে বিক্রির জন্য বস্তাজাত করা হয়েছে - তাও ধরা পড়ে। এসময় বিভিন্ন অনিয়ম ও অসঙ্গতি দেখতে পায়। পরে পুলিশ এসে পরিচ্ছন্নতা কর্মী মোমরেজ শেখ ও সেলিম খানকে গ্রেপ্তার  করে থানায় নিয়ে যায়। 
 



এব্যাপারে চালকল সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন মাতুব্বর বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে। গ্রেপ্তারকৃত মোমরেজ শেখ জানান, খাদ্য গুদাম কর্মকর্তার নিদের্শে আমরা এ কাজ করেছি।

এদিকে  চাল সংগ্রহ অভিযান উদ্বোধনের তিন দিন পূ‌র্বে খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা কাজী সালাউদ্দিন প্রত্যয়ন পত্র ছাড়াই দুটি অটো রাইচ মিলের সাথে আতাঁত করে ৬০০ মেট্রিক চাল ক্রয় করে গুদামজাত করেন। ১৪ মে চাল সংগ্রহ অভিযান উদ্বোধন করতে আসলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হাতে এ ঘটনা ধরা পড়ে।

এব্যাপারে সহকারি কমিশনার(ভুমি) সালমা পারভিন এর নেতৃত্ত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে । এর রেশ কাটতে না কাটতেই আজ শুক্রবার  আবার সেই খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা কর্তৃক চাল আত্মসাতের ঘটনা প্রকাশ পাওয়ায়  প্রশাসন সহ এলাকায় ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহানা নাসরিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছি। একারনে এ অবৈধ কর্মকান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত দুই পরিচ্ছন্নতা কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং প্রমান হিসেবে কিছু মালামাল জব্দ করা হয়েছে।

তারিখ সিলেক্ট করে খুজুন