সোমবার, ২৭-মে-২০১৯ ইং | দুপুর : ০১:২৫:১১ | আর্কাইভ

মোস্তাফিজদের প্রস্তুতিই এখন তাসকিন-ফরহাদের জীবনমরণ লড়াই!

তারিখ: ২০১৯-০৫-০৫ ০১:৩১:০৮ | ক্যাটেগরী: খেলা | পঠিত: ১৯ বার

আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ট্রফি উন্মোচন হয়ে গেল কাল। ডাবলিনের রৌদ্রোজ্জ্বল দুপুরে তিন দলের তিন অধিনায়ক—উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড, জ্যাসন হোল্ডার আর মাশরাফি বিন মুর্তজা পোজ দিলেন ট্রফি সামনে রেখে। সিরিজ যখন খেলতে নেমেছেন, শিরোপাজয়ের আকাঙ্ক্ষা তো থাকবেই। আয়ারল্যান্ডের কথা বলার উপায় নেই। তবে নিশ্চিত, প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছাপিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজটা ঝালিয়ে নেওয়ার সিরিজ হিসেবেই দেখবে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ঝালিয়ে নেওয়ার সিরিজ বলেই কিনা ওয়েস্ট ইন্ডিজ দুর্বল দল নিয়েই আয়ারল্যান্ডে এসেছে। তাদের বিশ্বকাপ স্কোয়াডের অর্ধেকই এখানে নেই। বড় তারকারা আইপিএলে এখনো ব্যস্ত বলে ১৫ জনের মধ্যে এই সিরিজে আপাতত পাওয়া গেছে ৮ জনকে। বাংলাদেশ কিছুদিন আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজে গিয়ে ওয়ানডে সিরিজ জিতে এসেছে, সেটি একটুর জন্য ৩-০ হয়নি। আর আয়ারল্যান্ড তো বিশ্বকাপেই নেই। বাংলাদেশ পরিষ্কার ফেবারিট বলেই হয়তো বিশ্বকাপ দলের বোলারদের ঘুরিয়ে–ফিরিয়ে খেলাতে চায় টিম ম্যানেজমেন্ট।

 

বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পাওয়া বেশির ভাগ বোলারেরই একটু-আধটু চোটাঘাত আছে। স্বস্তির খবর, তাঁরা বেশির ভাগই সেরে উঠছেন। গোড়ালিতে চোট পাওয়া মোস্তাফিজুর রহমান পূর্ণ ছন্দে বোলিং করছেন ডাবলিনের নেটে। নিয়মিত বোলিং করছেন সাইফউদ্দীন-রুবেলও। নেটে যেমনই বোলিং করুন, বিশ্বকাপ খেলা বোলারদের বিশ্রাম দিয়ে দিয়ে খেলানোর কথা এই ত্রিদেশীয় সিরিজে। মোস্তাফিজ-সাইফউদ্দীনের তাই ২-৩টি বেশি ম্যাচ খেলার কথা নয় আয়ারল্যান্ড সফরে।

মোস্তাফিজ-রুবেল-সাইফউদ্দীনের কাছে সিরিজটা শুধুই ঝালিয়ে নেওয়ার। ঠিক বিপরীত প্রেক্ষাপট তাসকিন আহমেদ, ফরহাদ রেজা, ইয়াসির আলী কিংবা নাঈম হাসানদের কাছে। তাঁদের কাছে এই সিরিজ ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। তাসকিন-ফরহাদ-ইয়াসিরদের নেওয়াই হয়েছে শুধু আয়ারল্যান্ড সফরে। জাতীয় দলের দরজাটা যেন খোলা থাকে বা জায়গাটা যেন পোক্ত হয় অথবা ভাগ্য সুপ্রসন্ন থাকলে বিশ্বকাপ দলে জায়গা হয়—এত সমীকরণ যাঁদের সামনে, তাঁদের এই সিরিজ হালকাভাবে নেওয়ার সুযোগই নেই। কারও কাছে এই ত্রিদেশীয় সিরিজ নিজেকে প্রস্তুত করা, কারও কাছে সেটিই যেন ‘জীবনমরণের’ প্রশ্ন!

তারিখ সিলেক্ট করে খুজুন