বুধবার, ১৭-জুলাই-২০১৯ ইং | বিকাল : ০৫:৩২:০১ | আর্কাইভ

ভাল থাকুক বাবা নামক সকল শ্রমিকরা

তারিখ: ২০১৯-০৫-০২ ০৩:১১:২০ | ক্যাটেগরী: ফিচার | পঠিত: ৮৮ বার

গতকাল হাতিরঝিল থেকে ফার্মগেটের উদ্দেশ্যে রিক্সাযোগে আসছিলাম। সভাবগত কারণেই আলাপচারিতায় মেতে উঠলাম চালকের সাথে। এক ছেলে এক মেয়ের এই জনকের বাড়ি নরসিংদী জেলায়। ঢাকায় এসে রিক্সা চালাচ্ছে মাত্র ১৫ দিন। তার মধ্যে আবার বাড়ি গিয়ে ৫ দিন থেকেও এসেছেন তিনি। সব মিলিয়ে ১০ দিন রিক্সা চালাচ্ছেন হাতিরঝিল টু ফার্মগেট।ছেলেটির বয়স ১০ মাস। তাকে দেখতেই বাড়ি যেতে হয়েছিলো। বাড়ি যাওয়ার পর তাকে নাকি কেউ ছিনতেই পারছেন না। ১০ দিনের পরিশ্রমে অনেকটাই শুকিয়ে গেছেন তিনি।

আগে ছোটখাট ব্যবসায় করতেন এলাকায়। ভালই চলছিলো তাদের ছোট্ট সংসার। মেয়ের পড়াশোনার খরচ মিটিয়েও সুখেই কেটে যাচ্ছিলো।

মেয়ের নাম আয়েশা (রুপক নাম)। পড়ে দশম শ্রেণিতে। স্টুডেন্ট হিসেবেও ভাল। হ্ঠাৎ ভাল একটা বিয়ের প্রস্তাব আসে। আজ হোক কাল হোক মেয়েকেতো বিয়ে দিতেই হবে। এমন ভাল পাত্র কি পরে পাওয়া যাবে? এসব চিন্তা থেকে মেয়ের বিয়ে দিয়ে দিলেন তিনি। যার খরচ যোগাড় করতে পুরো ব্যবসায়ের চালান ব্যয় করতে হয়েছিল তাকে। শশুর বাড়িতে খাট-ড্রেসিং টেবিল পর্যন্ত দিতে হয়েছে।

সংসারের হাল ধরতে এখন রিক্সা চালাচ্ছেন। লোকলজ্জার ভয়েই ঢাকায় রিক্সা চালান তিনি। বাড়িতেও কেউ জানে না তিনি রিক্সা চালান। যা আয় হয় তা দিয়ে সংসার চালাচ্ছেন এবং কিছু সঞ্চয়ও করছেন। সঞ্চয়ের টাকা দিয়ে আবারো ব্যবসায় করবেন বলে আশাবাদী তিনি।

ভাল থাকুক বাবা নামক সকল শ্রমিকরা। ভাল থাকুক বিয়ের নামে এসকল বাবাদের কাছ থেকে সম্পদ হাতিয়ে নেয়া পিশাচরা। দোয়া করি আল্লাহ যেন জান্নাত নামক মেয়ের জন্ম তাদের ঘরে না দেয়।

লেখক : মো: নাঈম কামাল

“ফিচার” বিভাগের আরো খবর

ভাল থাকুক বাবা নামক সকল শ্রমিকরা

তারিখ সিলেক্ট করে খুজুন