ঢাকা ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে: যুক্তরাষ্ট্র পররাষ্ট্র দফতর

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:২২:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২৩
  • ৯৮ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড পরিচালনা করেছে এবং অন্যান্য মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের প্রকাশিত ‘কান্ট্রি রিপোর্টস অন টেররিজম–২০২২’ শীর্ষক প্রতিবেদনের বাংলাদেশ অংশে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনের বাংলাদেশ অংশে বলা হয়, ২০২২ সালে বাংলাদেশে সন্ত্রাসী সহিংসতার কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে, কর্তৃপক্ষ জঙ্গিদের কঠোরভাবে অনুসরণ অব্যাহত রেখেছে। বিশেষ করে আল-কায়েদা-অনুমোদিত গোষ্ঠী, জামাত-উল-মুজাহিদিন (জেএমবি) এবং আইএসআইএস-সম্পর্কিত জেএমবি শাখা নব্য জেএমবি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তারা প্রায়শই সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জিরো টলারেন্স নীতির উপর জোর দিয়েছিলেন, যদিও বাংলাদেশ আল-কায়েদা এবং আইএসআইএসের মতো বিশ্বব্যাপী সংগঠিত জিহাদি জঙ্গি গোষ্ঠীর উপস্থিতি অস্বীকার করে চলেছে। অক্টোবরে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ আল-কায়েদা অনুপ্রাণিত একটি গোষ্ঠী জামাআতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারকিয়া (জেএএইচএস)কে ধ্বংস করার জন্য অভিযানের ঘোষণা দেয়। যুক্তরাষ্ট্রের প্রশিক্ষিত বাংলাদেশ পুলিশ কয়েক ডজন সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে। যাই হোক, নিরাপত্তা বাহিনীর অন্যান্য উপাদান- বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড পরিচালনা করেছে এবং অন্যান্য মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে।

গত অক্টোবরে বাংলাদেশের সন্ত্রাসবিরোধী র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) পার্বত্য চট্টগ্রামে আল-কায়েদা অনুপ্রাণিত একটি গোষ্ঠীকে অন্যত্র হামলা চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য অভিযানের ঘোষণা দেয়। কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করেছে যে, জেএএইচএস জাতিগত বিচ্ছিন্নতাবাদী জঙ্গি সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টকে সহযোগিতা করেছিল। কর্তৃপক্ষ বছরের বাকি সময়জুড়ে কয়েক ডজন জেএএইচএস সদস্যকে গ্রেপ্তারের ঘোষণা দিয়েছে।

২০১৫ সালে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবনে হামলার ঘটনায় প্রকাশক ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় দোষী সাব্যস্ত মইনুল হাসান শামীম ও আবু সিদ্দিক সোহেলকে গত ২০ নভেম্বর মুক্তি দেয় জঙ্গিরা। কর্তৃপক্ষ নিষিদ্ধ ঘোষিত আল-কায়েদা অনুমোদিত আনসার আল-ইসলামের ২০ জন সন্দেহভাজন সদস্যকে পালানোর পরিকল্পনা অথবা কার্যকর করতে সহায়তা করার জন্য অভিযুক্ত করেছে। মুক্তিপ্রাপ্ত আসামিরা ২০২২ সালের শেষে পলাতক ছিলেন।

২০০৯ সালের সন্ত্রাসবিরোধী আইন (সংশোধিত হিসাবে) সন্ত্রাসী সন্দেহভাজনদের গ্রেপ্তার এবং আটকের ভিত্তি হিসাবে রয়ে গেছে। ২০১৮ সালের ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট (ডিএসএ) অনুযায়ী, পুলিশ অনলাইনে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য প্রচার, অর্থায়ন, মৌলবাদ, নিয়োগ বা বিতরণকারী ‘চরমপন্থীদের’ গ্রেপ্তার করতে পারে। দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক সমালোচকরা দাবি করেছেন যে, ডিএসএ প্রধানত সরকারি সমালোচকদের লক্ষ্যবস্তু, হয়রানি এবং গ্রেপ্তারের জন্য ব্যবহৃত হয়।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসিইউ), জাতীয় পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ) এবং র‍্যাব সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। সিটিটিসিইউ ২৭টি মামলার তদন্ত করেছে, ২৭টি অভিযান পরিচালনা করেছে এবং ৬১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সিটি পুলিশ একাধিক ঘটনায় সাড়া দিয়ে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে। এটিইউ, যদিও তার জাতীয়ভাবে বাধ্যতামূলক সিটি সক্ষমতা বিকাশ অব্যাহত রেখেছে, তার কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করেছে, ২৭টি তদন্ত সম্পন্ন করেছে এবং ৪২টি অপারেশন পরিচালনা করেছে। যার ফলে ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সিটি-সম্পর্কিত অন্যান্য ইউনিটগুলোর মধ্যে রয়েছে ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্সের কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো, বর্ডার গার্ডস, স্পেশাল ব্রাঞ্চ, এভিয়েশন সিকিউরিটি, এয়ারপোর্ট ইমিগ্রেশন পুলিশ এবং এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন। প্রত্যেকেই স্বাধীনভাবে কাজ করতো।

অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা জোরদার ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রকে সহযোগিতা করেছে বাংলাদেশ। মার্কিন সরকার সিটিটিসিইউ, এটিইউ এবং সারা দেশের অন্যান্য পুলিশ ইউনিটকে বিভিন্ন ধরণের সহায়তা সরবরাহ করেছিল। মার্কিন সরকার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের (এটিটি) বিচারক এবং প্রসিকিউটরদের প্রমাণ পরিচালনা, তদন্ত পরিচালনা এবং সন্ত্রাসী ও সন্ত্রাসী অর্থায়নের মামলার বিচারের প্রশিক্ষণও দিয়েছে। র‍্যাব এবং সিটিটিসিইউ’র বিশেষ অস্ত্র ও কৌশল বিভাগ বিধিনিষেধের কারণে সহায়তার জন্য অযোগ্য।

বাংলাদেশের স্থল ও সামুদ্রিক সীমান্তে টহল দেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে এবং আপডেট সরঞ্জাম, পদ্ধতি এবং বর্ধিত কর্মী দিয়ে কার্গো এবং যাত্রী স্ক্রিনিংয়ের উন্নতি হয়েছে। বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ বন্দরের নিরাপত্তায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধন করেছে, বিশেষ করে বাংলাদেশের প্রধান বন্দর চট্টগ্রামে। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ ঢাকায় বর্তমানে নির্মাণাধীন একটি নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর টার্মিনালে কার্যকর নিরাপত্তাব্যবস্থা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে এবং যথাযথ উচ্চমানের সরঞ্জাম সংগ্রহ করেছে। বিমানবন্দর এবং বন্দর কর্তৃপক্ষ উভয়ই বন্দর এবং বিমানবন্দরের নিরাপত্তা উন্নত করতে মার্কিন সরকারের সাথে সহযোগিতার বিষয়ে উত্সাহী ছিল।

বাংলাদেশ ইন্টারপোলের সাথে তথ্য ভাগ করে নেয়, তবে কোন জাতীয় সন্ত্রাসী ওয়াচলিস্ট নেই। স্পেশাল ব্রাঞ্চের নিজস্ব অভ্যন্তরীণ ওয়াচলিস্ট রয়েছে, যা ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্সের মহাপরিচালক এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা মহাপরিচালককে কেবলমাত্র পাঠযোগ্য সুবিধা প্রদান করে। একটি মার্কিন ‘সতর্কতা তালিকা’ প্রকল্প টিইউ, সিটিটিসিইউ এবং মেট্রোপলিটন পুলিশের সাথে সমন্বয় করে বিশেষ শাখা দ্বারা পরিচালিত হবে। ফ্লাইট আসার আগে যাত্রীদের স্ক্রিনিংয়ের জন্য বাংলাদেশ পদ্ধতিগতভাবে এপিআই বা পিএনআর ডেটা ব্যবহার করে না।

বাংলাদেশ ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিচ্ছে। যদিও শিবিরগুলোতে সহিংসতা উদ্বেগের বিষয় ছিল এবং বাংলাদেশি কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে শরণার্থী মৌলবাদের সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর নিয়োগ এবং সহিংসতা বাড়ানোর সম্ভাবনা তুলে ধরেছিলেন। তবে ২০২২ সালে শিবিরগুলো থেকে উল্লেখযোগ্য সন্ত্রাসী হুমকি সম্পর্কে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

২০১৬ সালে হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় জড়িত থাকার দায়ে সাত সন্ত্রাসীকে মৃত্যুদণ্ড দেয় এটিটি। সুপ্রিম কোর্ট এখনও তাদের আবেদনের বিষয়ে রায় দেয়নি। সাতটি এটিটিতে প্রায় ৬৮০টি কেসলোড ছিল, যা ২০২১ সালের তুলনায় সামান্য হ্রাস পেয়েছে। ভারতের খাগড়াগড়ে ২০১৪ সালের আইইডি বিস্ফোরণে জড়িত থাকার দায়ে আইএস ও জেএমবি সদস্য মোহাম্মদ মসিউদ্দিন ওরফে আবু মুসাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনআইএ) একটি আদালত।

২০১৫ সালে ব্লগার ও লেখক অনন্ত বিজয় দাশ হত্যার দায়ে গত মার্চে সিলেটে এটিটি চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। ২০১৫ সালের আগস্টে চট্টগ্রাম নৌঘাঁটিতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির পাঁচ সদস্যকে মৃত্যুদণ্ড দেয় এটিটি।

বাংলাদেশ মানি লন্ডারিং সম্পর্কিত এশিয়া/প্রশান্ত মহাসাগরীয় গ্রুপের সদস্য। এর এফআইইউ, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট, এগমন্ট গ্রুপের সদস্য। ২০২২ সালে তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি।

পুলিশ, শিক্ষাবিদ, সুশীল সমাজ সংগঠন এবং অন্যান্যরা একটি জাতীয় সন্ত্রাসবিরোধী সমন্বয় কৌশলের খসড়া তৈরি অব্যাহত রেখেছে বলে জানা গেছে। তবে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদের মতে, এই প্রক্রিয়াটি স্থবির হয়ে থাকতে পারে। সিটিটিসিইউ, থিংক ট্যাঙ্ক, জাতিসংঘ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সন্ত্রাসী সংগঠন ম্যাপিং, সামাজিক প্রোফাইলিং, অনুপ্রেরণামূলক কারণ এবং নারীদের মৌলবাদের মতো বিষয়গুলোতে সিভিই-সম্পর্কিত গবেষণা পরিচালনা করতে সহযোগিতা করেছিল। গ্লোবাল কমিউনিটি এনগেজমেন্ট অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স ফান্ডের আওতায় কান্ট্রি সাপোর্ট মেকানিজমের মাধ্যমে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো সহযোগিতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

কারাগার ব্যবস্থায় সহিংসতা এবং সন্ত্রাসীদের জন্য মৌলবাদ একটি গুরুতর উদ্বেগ হিসাবে রয়ে গেছে। সিটিটিসিইউ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ২০২৩ সালে বাংলাদেশের নির্বাচিত কারাগারগুলোতে বাস্তবায়নের জন্য সহিংসতা থেকে একটি সমন্বিত ডির‍্যাডিকালাইজেশন প্রোগ্রাম বিকাশ শুরু করে। ঢাকা উত্তর, ঢাকা দক্ষিণ ও নারায়ণগঞ্জ স্ট্রং সিটিনেটওয়ার্কের সদস্য।

সিটি অঙ্গনে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের কার্যক্রমে বাংলাদেশ সক্রিয় ছিল।

বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে: যুক্তরাষ্ট্র পররাষ্ট্র দফতর

আপডেট সময় ০৪:২২:১০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২৩

বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড পরিচালনা করেছে এবং অন্যান্য মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের প্রকাশিত ‘কান্ট্রি রিপোর্টস অন টেররিজম–২০২২’ শীর্ষক প্রতিবেদনের বাংলাদেশ অংশে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনের বাংলাদেশ অংশে বলা হয়, ২০২২ সালে বাংলাদেশে সন্ত্রাসী সহিংসতার কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে, কর্তৃপক্ষ জঙ্গিদের কঠোরভাবে অনুসরণ অব্যাহত রেখেছে। বিশেষ করে আল-কায়েদা-অনুমোদিত গোষ্ঠী, জামাত-উল-মুজাহিদিন (জেএমবি) এবং আইএসআইএস-সম্পর্কিত জেএমবি শাখা নব্য জেএমবি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তারা প্রায়শই সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জিরো টলারেন্স নীতির উপর জোর দিয়েছিলেন, যদিও বাংলাদেশ আল-কায়েদা এবং আইএসআইএসের মতো বিশ্বব্যাপী সংগঠিত জিহাদি জঙ্গি গোষ্ঠীর উপস্থিতি অস্বীকার করে চলেছে। অক্টোবরে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ আল-কায়েদা অনুপ্রাণিত একটি গোষ্ঠী জামাআতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারকিয়া (জেএএইচএস)কে ধ্বংস করার জন্য অভিযানের ঘোষণা দেয়। যুক্তরাষ্ট্রের প্রশিক্ষিত বাংলাদেশ পুলিশ কয়েক ডজন সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে। যাই হোক, নিরাপত্তা বাহিনীর অন্যান্য উপাদান- বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড পরিচালনা করেছে এবং অন্যান্য মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে।

গত অক্টোবরে বাংলাদেশের সন্ত্রাসবিরোধী র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) পার্বত্য চট্টগ্রামে আল-কায়েদা অনুপ্রাণিত একটি গোষ্ঠীকে অন্যত্র হামলা চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য অভিযানের ঘোষণা দেয়। কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করেছে যে, জেএএইচএস জাতিগত বিচ্ছিন্নতাবাদী জঙ্গি সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টকে সহযোগিতা করেছিল। কর্তৃপক্ষ বছরের বাকি সময়জুড়ে কয়েক ডজন জেএএইচএস সদস্যকে গ্রেপ্তারের ঘোষণা দিয়েছে।

২০১৫ সালে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবনে হামলার ঘটনায় প্রকাশক ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় দোষী সাব্যস্ত মইনুল হাসান শামীম ও আবু সিদ্দিক সোহেলকে গত ২০ নভেম্বর মুক্তি দেয় জঙ্গিরা। কর্তৃপক্ষ নিষিদ্ধ ঘোষিত আল-কায়েদা অনুমোদিত আনসার আল-ইসলামের ২০ জন সন্দেহভাজন সদস্যকে পালানোর পরিকল্পনা অথবা কার্যকর করতে সহায়তা করার জন্য অভিযুক্ত করেছে। মুক্তিপ্রাপ্ত আসামিরা ২০২২ সালের শেষে পলাতক ছিলেন।

২০০৯ সালের সন্ত্রাসবিরোধী আইন (সংশোধিত হিসাবে) সন্ত্রাসী সন্দেহভাজনদের গ্রেপ্তার এবং আটকের ভিত্তি হিসাবে রয়ে গেছে। ২০১৮ সালের ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট (ডিএসএ) অনুযায়ী, পুলিশ অনলাইনে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য প্রচার, অর্থায়ন, মৌলবাদ, নিয়োগ বা বিতরণকারী ‘চরমপন্থীদের’ গ্রেপ্তার করতে পারে। দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক সমালোচকরা দাবি করেছেন যে, ডিএসএ প্রধানত সরকারি সমালোচকদের লক্ষ্যবস্তু, হয়রানি এবং গ্রেপ্তারের জন্য ব্যবহৃত হয়।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট (সিটিটিসিইউ), জাতীয় পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট (এটিইউ) এবং র‍্যাব সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। সিটিটিসিইউ ২৭টি মামলার তদন্ত করেছে, ২৭টি অভিযান পরিচালনা করেছে এবং ৬১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সিটি পুলিশ একাধিক ঘটনায় সাড়া দিয়ে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে। এটিইউ, যদিও তার জাতীয়ভাবে বাধ্যতামূলক সিটি সক্ষমতা বিকাশ অব্যাহত রেখেছে, তার কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করেছে, ২৭টি তদন্ত সম্পন্ন করেছে এবং ৪২টি অপারেশন পরিচালনা করেছে। যার ফলে ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সিটি-সম্পর্কিত অন্যান্য ইউনিটগুলোর মধ্যে রয়েছে ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্সের কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো, বর্ডার গার্ডস, স্পেশাল ব্রাঞ্চ, এভিয়েশন সিকিউরিটি, এয়ারপোর্ট ইমিগ্রেশন পুলিশ এবং এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন। প্রত্যেকেই স্বাধীনভাবে কাজ করতো।

অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা জোরদার ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রকে সহযোগিতা করেছে বাংলাদেশ। মার্কিন সরকার সিটিটিসিইউ, এটিইউ এবং সারা দেশের অন্যান্য পুলিশ ইউনিটকে বিভিন্ন ধরণের সহায়তা সরবরাহ করেছিল। মার্কিন সরকার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের (এটিটি) বিচারক এবং প্রসিকিউটরদের প্রমাণ পরিচালনা, তদন্ত পরিচালনা এবং সন্ত্রাসী ও সন্ত্রাসী অর্থায়নের মামলার বিচারের প্রশিক্ষণও দিয়েছে। র‍্যাব এবং সিটিটিসিইউ’র বিশেষ অস্ত্র ও কৌশল বিভাগ বিধিনিষেধের কারণে সহায়তার জন্য অযোগ্য।

বাংলাদেশের স্থল ও সামুদ্রিক সীমান্তে টহল দেওয়ার সক্ষমতা রয়েছে এবং আপডেট সরঞ্জাম, পদ্ধতি এবং বর্ধিত কর্মী দিয়ে কার্গো এবং যাত্রী স্ক্রিনিংয়ের উন্নতি হয়েছে। বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ বন্দরের নিরাপত্তায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধন করেছে, বিশেষ করে বাংলাদেশের প্রধান বন্দর চট্টগ্রামে। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ ঢাকায় বর্তমানে নির্মাণাধীন একটি নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর টার্মিনালে কার্যকর নিরাপত্তাব্যবস্থা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে এবং যথাযথ উচ্চমানের সরঞ্জাম সংগ্রহ করেছে। বিমানবন্দর এবং বন্দর কর্তৃপক্ষ উভয়ই বন্দর এবং বিমানবন্দরের নিরাপত্তা উন্নত করতে মার্কিন সরকারের সাথে সহযোগিতার বিষয়ে উত্সাহী ছিল।

বাংলাদেশ ইন্টারপোলের সাথে তথ্য ভাগ করে নেয়, তবে কোন জাতীয় সন্ত্রাসী ওয়াচলিস্ট নেই। স্পেশাল ব্রাঞ্চের নিজস্ব অভ্যন্তরীণ ওয়াচলিস্ট রয়েছে, যা ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্সের মহাপরিচালক এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা মহাপরিচালককে কেবলমাত্র পাঠযোগ্য সুবিধা প্রদান করে। একটি মার্কিন ‘সতর্কতা তালিকা’ প্রকল্প টিইউ, সিটিটিসিইউ এবং মেট্রোপলিটন পুলিশের সাথে সমন্বয় করে বিশেষ শাখা দ্বারা পরিচালিত হবে। ফ্লাইট আসার আগে যাত্রীদের স্ক্রিনিংয়ের জন্য বাংলাদেশ পদ্ধতিগতভাবে এপিআই বা পিএনআর ডেটা ব্যবহার করে না।

বাংলাদেশ ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিচ্ছে। যদিও শিবিরগুলোতে সহিংসতা উদ্বেগের বিষয় ছিল এবং বাংলাদেশি কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে শরণার্থী মৌলবাদের সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর নিয়োগ এবং সহিংসতা বাড়ানোর সম্ভাবনা তুলে ধরেছিলেন। তবে ২০২২ সালে শিবিরগুলো থেকে উল্লেখযোগ্য সন্ত্রাসী হুমকি সম্পর্কে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

২০১৬ সালে হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় জড়িত থাকার দায়ে সাত সন্ত্রাসীকে মৃত্যুদণ্ড দেয় এটিটি। সুপ্রিম কোর্ট এখনও তাদের আবেদনের বিষয়ে রায় দেয়নি। সাতটি এটিটিতে প্রায় ৬৮০টি কেসলোড ছিল, যা ২০২১ সালের তুলনায় সামান্য হ্রাস পেয়েছে। ভারতের খাগড়াগড়ে ২০১৪ সালের আইইডি বিস্ফোরণে জড়িত থাকার দায়ে আইএস ও জেএমবি সদস্য মোহাম্মদ মসিউদ্দিন ওরফে আবু মুসাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনআইএ) একটি আদালত।

২০১৫ সালে ব্লগার ও লেখক অনন্ত বিজয় দাশ হত্যার দায়ে গত মার্চে সিলেটে এটিটি চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। ২০১৫ সালের আগস্টে চট্টগ্রাম নৌঘাঁটিতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির পাঁচ সদস্যকে মৃত্যুদণ্ড দেয় এটিটি।

বাংলাদেশ মানি লন্ডারিং সম্পর্কিত এশিয়া/প্রশান্ত মহাসাগরীয় গ্রুপের সদস্য। এর এফআইইউ, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট, এগমন্ট গ্রুপের সদস্য। ২০২২ সালে তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি।

পুলিশ, শিক্ষাবিদ, সুশীল সমাজ সংগঠন এবং অন্যান্যরা একটি জাতীয় সন্ত্রাসবিরোধী সমন্বয় কৌশলের খসড়া তৈরি অব্যাহত রেখেছে বলে জানা গেছে। তবে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদের মতে, এই প্রক্রিয়াটি স্থবির হয়ে থাকতে পারে। সিটিটিসিইউ, থিংক ট্যাঙ্ক, জাতিসংঘ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সন্ত্রাসী সংগঠন ম্যাপিং, সামাজিক প্রোফাইলিং, অনুপ্রেরণামূলক কারণ এবং নারীদের মৌলবাদের মতো বিষয়গুলোতে সিভিই-সম্পর্কিত গবেষণা পরিচালনা করতে সহযোগিতা করেছিল। গ্লোবাল কমিউনিটি এনগেজমেন্ট অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স ফান্ডের আওতায় কান্ট্রি সাপোর্ট মেকানিজমের মাধ্যমে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো সহযোগিতামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

কারাগার ব্যবস্থায় সহিংসতা এবং সন্ত্রাসীদের জন্য মৌলবাদ একটি গুরুতর উদ্বেগ হিসাবে রয়ে গেছে। সিটিটিসিইউ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ২০২৩ সালে বাংলাদেশের নির্বাচিত কারাগারগুলোতে বাস্তবায়নের জন্য সহিংসতা থেকে একটি সমন্বিত ডির‍্যাডিকালাইজেশন প্রোগ্রাম বিকাশ শুরু করে। ঢাকা উত্তর, ঢাকা দক্ষিণ ও নারায়ণগঞ্জ স্ট্রং সিটিনেটওয়ার্কের সদস্য।

সিটি অঙ্গনে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনের কার্যক্রমে বাংলাদেশ সক্রিয় ছিল।