ঢাকা ১১:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেট্রোরেলে দৃষ্টিকটু বিজ্ঞাপন: তদন্ত কমিটি গঠন

মেট্রোরেল কোচের ভেতরে বিজ্ঞাপন সাঁটানো হয়েছে। গতকাল সোমবার (১৩ নভেম্বর) সকাল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু ভিডিও এবং ছবি ছড়িয়ে পড়ে মেট্রোরেলের। এরপরই বিজ্ঞাপন সাঁটানোর বিষয়ে তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ।

ডিএমটিসিএল জানিয়েছে, মেট্রোরেল কাঠামোর স্টেশন ও ট্রেনে বিজ্ঞাপন থাকবে। তবে সেটা নির্ধারিত ও বরাদ্দকৃত জায়গার বাইরে লাগানো হয়েছে কি না, সেটা তদন্ত করা হবে।

ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক আজ মঙ্গলবার বলেন, ডিএমটিসিএলের অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) খোন্দকার এহতেশামুল কবীরকে প্রধান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি কতটুকু জায়গায় বিজ্ঞাপন লাগানো হয়েছে, কতটুকু বরাদ্দ ছিল, তা খতিয়ে দেখবে। সব দেশেই মেট্রোরেলের আয় বাড়াতে বিজ্ঞাপন থাকে, বাংলাদেশেও থাকবে।

ঢাকার উত্তরা থেকে মিরপুর হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত এখন মেট্রোরেল চলছে। এই মেট্রোরেল কাঠামোর ট্রেনের ভেতরে দৃষ্টিকটুভাবে বিজ্ঞাপনের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। কেউ কেউ মেট্রোরেলে বিজ্ঞাপন দেওয়া প্রতিষ্ঠানের সমালোচনা করেন। কেউ কেউ এভাবে বিজ্ঞাপন দেওয়ার সুযোগ দেওয়ায় ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তাদের সমালোচনা করেন। এমন পরিস্থিতিতে আজ কমিটি গঠনের খবর জানা গেল।

অবশ্য ডিএমটিসিএলের ওয়েবসাইটে গত ৪ জুনের একটি দরপত্র বিজ্ঞপ্তি পাওয়া যায়। সেখানে মেট্রোরেলের অভ্যন্তরে বিজ্ঞাপনের দরপত্র প্রস্তাব আহ্বান করা হয়। এতে বলা হয়, উত্তরা-মতিঝিল পথে চলাচলকারী এমআরটি লাইন-৬-এর ২৪ সেট মেট্রোরেলের ভেতরে নির্ধারিত আলোকিত ও অনালোকিত বিজ্ঞাপনের জায়গা ভাড়া দেওয়া হবে।

ঢাকার উত্তরা থেকে ফার্মগেট পথে নিয়মিত যাতায়াত করা এক যাত্রী বলেন, আমি এখনো মেট্রো ট্রেনে বিজ্ঞাপন দেখিনি। তবে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে যেভাবে বিজ্ঞাপন লাগাতে দেখেছি, তা দৃষ্টিকটু।

মেট্রোরেলে দৃষ্টিকটু বিজ্ঞাপন: তদন্ত কমিটি গঠন

আপডেট সময় ০১:২৭:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩

মেট্রোরেল কোচের ভেতরে বিজ্ঞাপন সাঁটানো হয়েছে। গতকাল সোমবার (১৩ নভেম্বর) সকাল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু ভিডিও এবং ছবি ছড়িয়ে পড়ে মেট্রোরেলের। এরপরই বিজ্ঞাপন সাঁটানোর বিষয়ে তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ।

ডিএমটিসিএল জানিয়েছে, মেট্রোরেল কাঠামোর স্টেশন ও ট্রেনে বিজ্ঞাপন থাকবে। তবে সেটা নির্ধারিত ও বরাদ্দকৃত জায়গার বাইরে লাগানো হয়েছে কি না, সেটা তদন্ত করা হবে।

ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক আজ মঙ্গলবার বলেন, ডিএমটিসিএলের অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) খোন্দকার এহতেশামুল কবীরকে প্রধান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি কতটুকু জায়গায় বিজ্ঞাপন লাগানো হয়েছে, কতটুকু বরাদ্দ ছিল, তা খতিয়ে দেখবে। সব দেশেই মেট্রোরেলের আয় বাড়াতে বিজ্ঞাপন থাকে, বাংলাদেশেও থাকবে।

ঢাকার উত্তরা থেকে মিরপুর হয়ে মতিঝিল পর্যন্ত এখন মেট্রোরেল চলছে। এই মেট্রোরেল কাঠামোর ট্রেনের ভেতরে দৃষ্টিকটুভাবে বিজ্ঞাপনের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। কেউ কেউ মেট্রোরেলে বিজ্ঞাপন দেওয়া প্রতিষ্ঠানের সমালোচনা করেন। কেউ কেউ এভাবে বিজ্ঞাপন দেওয়ার সুযোগ দেওয়ায় ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তাদের সমালোচনা করেন। এমন পরিস্থিতিতে আজ কমিটি গঠনের খবর জানা গেল।

অবশ্য ডিএমটিসিএলের ওয়েবসাইটে গত ৪ জুনের একটি দরপত্র বিজ্ঞপ্তি পাওয়া যায়। সেখানে মেট্রোরেলের অভ্যন্তরে বিজ্ঞাপনের দরপত্র প্রস্তাব আহ্বান করা হয়। এতে বলা হয়, উত্তরা-মতিঝিল পথে চলাচলকারী এমআরটি লাইন-৬-এর ২৪ সেট মেট্রোরেলের ভেতরে নির্ধারিত আলোকিত ও অনালোকিত বিজ্ঞাপনের জায়গা ভাড়া দেওয়া হবে।

ঢাকার উত্তরা থেকে ফার্মগেট পথে নিয়মিত যাতায়াত করা এক যাত্রী বলেন, আমি এখনো মেট্রো ট্রেনে বিজ্ঞাপন দেখিনি। তবে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে যেভাবে বিজ্ঞাপন লাগাতে দেখেছি, তা দৃষ্টিকটু।