ঢাকা ০৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পেঁয়াজ আমদানির পরও কমছে না দাম

পেঁয়াজ আমদানির পরও কমছে না দাম

গত মাসের শেষে ভারতে রপ্তানিমূল্য বেঁধে দেওয়ার খবরে বাংলাদেশে হু হু করে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। এতে আগে থেকেই বেড়ে যাওয়া নিত্যপণ্যটি নিয়ে আরও অস্থিরতা চলছে। দুই সপ্তাহেও কোনো সুখবর মেলেনি। চড়া দামেই আটকে আছে।

বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দেখা গেছে, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা দরে। আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি ১১০ থেকে ১২০ টাকা। মালিবাগ বাজারের বিক্রেতা মুক্তার হোসেন বলেন, ‘দাম কমার কোনো লক্ষণ নেই। বরং বাড়তি যাচ্ছে। পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ১২২ থেকে ১২৬ টাকা ধরে কিনতে হচ্ছে।

এদিকে বুধবার (৮ নভেম্বর) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ‘নতুন পেঁয়াজ বাজারে না আসা পর্যন্ত পেঁয়াজের দাম কমবে না। আগামী মাসে ‘মুড়িকাটা’ পেঁয়াজ বাজারে এলে দাম কমতে শুরু করবে। আমদানি করা পেঁয়াজের স্টক শেষ হয়ে গেছে। দাম বেশি পড়ে যাওয়ায় ভারত থেকে এখনই পেঁয়াজ আমদানি করা সম্ভব হচ্ছে না।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমদানি করা আলু বাজারে মাত্র আসা শুরু করেছে। আরও আসতে থাকলে আলুর দাম কমে যাবে। একই সঙ্গে নতুন আলু বাজারে আসতে আরও মাসখানেক সময় লাগবে। তখন দামে প্রভাব পড়বে।’

ভারত এমন সময় পেঁয়াজের রপ্তানিমূল্য বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে, যখন বাংলাদেশের বাজারে পেঁয়াজ বেশ চড়া দামে বিক্রি হচ্ছিল। পার্শ্ববর্তী দেশের এই সিদ্ধান্ত যেন পেঁয়াজের বাজারে ‘আগুনে ঘি ঢেলে দেওয়া’ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

পেঁয়াজ আমদানির পরও কমছে না দাম

আপডেট সময় ০৯:০৮:৪৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ নভেম্বর ২০২৩

গত মাসের শেষে ভারতে রপ্তানিমূল্য বেঁধে দেওয়ার খবরে বাংলাদেশে হু হু করে বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। এতে আগে থেকেই বেড়ে যাওয়া নিত্যপণ্যটি নিয়ে আরও অস্থিরতা চলছে। দুই সপ্তাহেও কোনো সুখবর মেলেনি। চড়া দামেই আটকে আছে।

বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর) রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দেখা গেছে, প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা দরে। আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি ১১০ থেকে ১২০ টাকা। মালিবাগ বাজারের বিক্রেতা মুক্তার হোসেন বলেন, ‘দাম কমার কোনো লক্ষণ নেই। বরং বাড়তি যাচ্ছে। পাইকারি বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ১২২ থেকে ১২৬ টাকা ধরে কিনতে হচ্ছে।

এদিকে বুধবার (৮ নভেম্বর) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ‘নতুন পেঁয়াজ বাজারে না আসা পর্যন্ত পেঁয়াজের দাম কমবে না। আগামী মাসে ‘মুড়িকাটা’ পেঁয়াজ বাজারে এলে দাম কমতে শুরু করবে। আমদানি করা পেঁয়াজের স্টক শেষ হয়ে গেছে। দাম বেশি পড়ে যাওয়ায় ভারত থেকে এখনই পেঁয়াজ আমদানি করা সম্ভব হচ্ছে না।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমদানি করা আলু বাজারে মাত্র আসা শুরু করেছে। আরও আসতে থাকলে আলুর দাম কমে যাবে। একই সঙ্গে নতুন আলু বাজারে আসতে আরও মাসখানেক সময় লাগবে। তখন দামে প্রভাব পড়বে।’

ভারত এমন সময় পেঁয়াজের রপ্তানিমূল্য বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে, যখন বাংলাদেশের বাজারে পেঁয়াজ বেশ চড়া দামে বিক্রি হচ্ছিল। পার্শ্ববর্তী দেশের এই সিদ্ধান্ত যেন পেঁয়াজের বাজারে ‘আগুনে ঘি ঢেলে দেওয়া’ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।