ঢাকা ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তিন সন্তানকে নিয়ে কীর্তিনাশা নদীতে ঝাঁপ মায়ের

তিন সন্তানকে নিয়ে কীর্তিনাশা নদীতে ঝাঁপ মায়ের

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুরের নড়িয়ায় তিন সন্তানকে নিয়ে কীর্তিনাশা নদীতে ঝাঁপ দিয়েছেন এক মা। এ ঘটনায় দুজনকে উদ্ধার করছেন তাবলিগ জামায়াতের সাথীরা। ফয়ার সার্ভিস বাকিদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছেন। পারিবারিক কলহে এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীর স্বজনরা।

রবিবার (৫ নভেম্বর ) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার জপসা ইউনিয়নের কীর্তিনাশা নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

নদীতে ঝাঁপ দেয়া মা হলেন, উপজেলার জপসা ইউনিয়নের মাইজপারা গ্রামের আজবাহার মাদবরের স্ত্রী ছালমা বেগম (২৫), তার ছেলে জাফর মাদবর (৭), মেয়ে আনিকা মাদবর (৩) ও ১০ মাস বয়সী ছেলে ছলেমান।

নিখোঁজ ছালমার মা শিরিনা বেগম বলেন, ছালমা শ্বশুর শাশুরী, ননদ ও ননাসের মানসিক অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে সন্তানসহ নদীতে ঝাঁপ দিয়েছে। তার স্বামী ভালো মানুষ। সে তাদের সাথে পেরে ওঠতো না।

কিন্তু ননদ ননাস, শ্বশুর শাশুরী তাকে নিয়মিত নির্যাতন করত। এ কারণে সকালে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে ছালমা আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে স্থানীয়রা আনিকা ও ছলেমানকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নিখোঁজ ছালমা ও তার ছেলে জাফরকে উদ্ধারে চেষ্টা চালাচ্ছে।

এ বিষয় নড়িয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, ‘নদীতে ঝাঁপ দেয়ার খবর শুনে ঘটনাস্থলে এসেছি। নিখোঁজদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা চেষ্টা চালাচ্ছেন।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

তিন সন্তানকে নিয়ে কীর্তিনাশা নদীতে ঝাঁপ মায়ের

আপডেট সময় ১০:৩৯:৫৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ নভেম্বর ২০২৩

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুরের নড়িয়ায় তিন সন্তানকে নিয়ে কীর্তিনাশা নদীতে ঝাঁপ দিয়েছেন এক মা। এ ঘটনায় দুজনকে উদ্ধার করছেন তাবলিগ জামায়াতের সাথীরা। ফয়ার সার্ভিস বাকিদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছেন। পারিবারিক কলহে এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীর স্বজনরা।

রবিবার (৫ নভেম্বর ) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার জপসা ইউনিয়নের কীর্তিনাশা নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

নদীতে ঝাঁপ দেয়া মা হলেন, উপজেলার জপসা ইউনিয়নের মাইজপারা গ্রামের আজবাহার মাদবরের স্ত্রী ছালমা বেগম (২৫), তার ছেলে জাফর মাদবর (৭), মেয়ে আনিকা মাদবর (৩) ও ১০ মাস বয়সী ছেলে ছলেমান।

নিখোঁজ ছালমার মা শিরিনা বেগম বলেন, ছালমা শ্বশুর শাশুরী, ননদ ও ননাসের মানসিক অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে সন্তানসহ নদীতে ঝাঁপ দিয়েছে। তার স্বামী ভালো মানুষ। সে তাদের সাথে পেরে ওঠতো না।

কিন্তু ননদ ননাস, শ্বশুর শাশুরী তাকে নিয়মিত নির্যাতন করত। এ কারণে সকালে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে ছালমা আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে স্থানীয়রা আনিকা ও ছলেমানকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নিখোঁজ ছালমা ও তার ছেলে জাফরকে উদ্ধারে চেষ্টা চালাচ্ছে।

এ বিষয় নড়িয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, ‘নদীতে ঝাঁপ দেয়ার খবর শুনে ঘটনাস্থলে এসেছি। নিখোঁজদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা চেষ্টা চালাচ্ছেন।