ঢাকা ১০:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইসরায়েল স্থল অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে, বললেন নেতানিয়াহু

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ইসরায়েল গাজায় স্থল অভিযান চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু এই অভিযান কখন চালানো হবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত কোন জানাতে রাজি হননি তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, তেল আবিব থেকে টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে তিনি বলেন, স্থল অভিযানটি কখন থেকে শুরু করা হবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত যুদ্ধকালীন মন্ত্রীসভার ঐক্যমতের ভিত্তিতে নেয়া হবে। আমরা এরইমধ্যে হাজার হাজার সন্ত্রাসীকে হত্যা করেছি এবং এটা শুরু মাত্র। একই সাথে আমরা একটি স্থল অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমি বলতে চাই না যে সেটি কখন, কিভাবে বা কতজন থাকবে। স্থল অভিযান নিয়ে আমরা কী কী বিষয়ে হিসাব-নিকাশ করছি সে সম্পর্কেও বিস্তারিত বলতে চাই না আমি, সাধারণ মানুষ এগুলো সম্পর্কে কিছু জানে না এবং এটাই হওয়া উচিত।”

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, “৬ই অক্টোবরের আগে যেমনটা ছিল” ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সেই “স্থিতিশীল” অবস্থানে ফিরে যাওয়ার আর কোন সুযোগ নেই।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, মঙ্গলবার ইসরায়েল ও হামাসের যুদ্ধের বিষয়ে তার দেয়া একটি বিবৃতির বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেখে “অবাক” হয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, বিবৃতিতে তিনি স্পষ্টভাবে বলেছেন যে, ইসরায়েলে ঘটিত ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের’ নিন্দা জানান তিনি। সেখানে তিনি আরো বলেছেন, এই হামলা “বিনা কারণে” হয়নি। ফিলিস্তিনি মানুষের দুঃখ-দুর্দশা হামাসের হামলাকে বৈধতা দিতে পারে না।

এদিকে গাজায় জ্বালানি শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে জরুরী চিকিৎসা সেবা বাদে আর সব কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছে হাসপাতালগুলো।

ইসরায়েল গাজায় জ্বালানি সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে এবং অভিযোগ তুলেছে যে হামাস এগুলোর মজুদ করে রেখেছে।

গাজায় থাকা হামাসের পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, গত সাতই অক্টোবরের পর থেকে ইসরায়েলের হামলায় এখনো পর্যন্ত সাড়ে ছয় হাজার মানুষ মারা গেছে।

ইসরায়েলে হামাসের হামলায় কমপক্ষে ১৪০০ জন নিহত হয়। এছাড়া আরো দুই শতাধিক মানুষকে গাজায় জিম্মি করে রাখা হয়েছে।

এদিকে, মিশরের কায়রো থেকে দেয়া এক বক্তব্যে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, গাজায় ইসরায়েলের বিশালাকার স্থল অভিযান চালানোটা “ভুল” হবে।

তিনি সতর্ক করে বলেন, এটি ইসরায়েলে দীর্ঘস্থায়ী নিরাপত্তার নিশ্চয়তা না দিয়ে বরং বেসামরিক নাগরিকদের ক্ষতি করবে।

কিন্তু ম্যাক্রোঁ বলেন যে, ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকারকে স্বীকৃতি দেয় ফ্রান্স। স্থল অভিযানটি যদি পুরোপুরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে লক্ষ্য করেই চালানো হয় তাহলে সেটা একটা বিকল্প হতে পারে।

কিন্তু যদি একটি বড় ধরণের অভিযান বেসামরিক জনগণকে বিপদগ্রস্ত করে তাহলে আমার মনে হয় সেটা ইসরায়েলের জন্য একটি ভুল পদক্ষেপ হবে।

টিআই

ইসরায়েল স্থল অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে, বললেন নেতানিয়াহু

আপডেট সময় ১২:৪২:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ অক্টোবর ২০২৩

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, ইসরায়েল গাজায় স্থল অভিযান চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু এই অভিযান কখন চালানো হবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত কোন জানাতে রাজি হননি তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, তেল আবিব থেকে টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে তিনি বলেন, স্থল অভিযানটি কখন থেকে শুরু করা হবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত যুদ্ধকালীন মন্ত্রীসভার ঐক্যমতের ভিত্তিতে নেয়া হবে। আমরা এরইমধ্যে হাজার হাজার সন্ত্রাসীকে হত্যা করেছি এবং এটা শুরু মাত্র। একই সাথে আমরা একটি স্থল অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছি। আমি বলতে চাই না যে সেটি কখন, কিভাবে বা কতজন থাকবে। স্থল অভিযান নিয়ে আমরা কী কী বিষয়ে হিসাব-নিকাশ করছি সে সম্পর্কেও বিস্তারিত বলতে চাই না আমি, সাধারণ মানুষ এগুলো সম্পর্কে কিছু জানে না এবং এটাই হওয়া উচিত।”

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, “৬ই অক্টোবরের আগে যেমনটা ছিল” ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সেই “স্থিতিশীল” অবস্থানে ফিরে যাওয়ার আর কোন সুযোগ নেই।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, মঙ্গলবার ইসরায়েল ও হামাসের যুদ্ধের বিষয়ে তার দেয়া একটি বিবৃতির বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেখে “অবাক” হয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, বিবৃতিতে তিনি স্পষ্টভাবে বলেছেন যে, ইসরায়েলে ঘটিত ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের’ নিন্দা জানান তিনি। সেখানে তিনি আরো বলেছেন, এই হামলা “বিনা কারণে” হয়নি। ফিলিস্তিনি মানুষের দুঃখ-দুর্দশা হামাসের হামলাকে বৈধতা দিতে পারে না।

এদিকে গাজায় জ্বালানি শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে জরুরী চিকিৎসা সেবা বাদে আর সব কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছে হাসপাতালগুলো।

ইসরায়েল গাজায় জ্বালানি সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে এবং অভিযোগ তুলেছে যে হামাস এগুলোর মজুদ করে রেখেছে।

গাজায় থাকা হামাসের পরিচালিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, গত সাতই অক্টোবরের পর থেকে ইসরায়েলের হামলায় এখনো পর্যন্ত সাড়ে ছয় হাজার মানুষ মারা গেছে।

ইসরায়েলে হামাসের হামলায় কমপক্ষে ১৪০০ জন নিহত হয়। এছাড়া আরো দুই শতাধিক মানুষকে গাজায় জিম্মি করে রাখা হয়েছে।

এদিকে, মিশরের কায়রো থেকে দেয়া এক বক্তব্যে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, গাজায় ইসরায়েলের বিশালাকার স্থল অভিযান চালানোটা “ভুল” হবে।

তিনি সতর্ক করে বলেন, এটি ইসরায়েলে দীর্ঘস্থায়ী নিরাপত্তার নিশ্চয়তা না দিয়ে বরং বেসামরিক নাগরিকদের ক্ষতি করবে।

কিন্তু ম্যাক্রোঁ বলেন যে, ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকারকে স্বীকৃতি দেয় ফ্রান্স। স্থল অভিযানটি যদি পুরোপুরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে লক্ষ্য করেই চালানো হয় তাহলে সেটা একটা বিকল্প হতে পারে।

কিন্তু যদি একটি বড় ধরণের অভিযান বেসামরিক জনগণকে বিপদগ্রস্ত করে তাহলে আমার মনে হয় সেটা ইসরায়েলের জন্য একটি ভুল পদক্ষেপ হবে।

টিআই