ঢাকা ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফিলিস্তিনিদের পক্ষে কথা বললেই জার্মানি ও ফ্রান্সে গ্রেপ্তার-জরিমানা

  • নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:২৯:৫৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩
  • ১০৯ বার পড়া হয়েছে

ফিলিস্তিনিদের পক্ষে কথা বললেই জার্মানি ও ফ্রান্সে গ্রেপ্তার-জরিমানা

ফিলিস্তিনিদের পক্ষে জমায়েত হয়ে কথা বললেই জরিমানা ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে জার্মানি ও ফ্রান্সে। বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে। বার্তা সংস্থাটি জানিয়েছে, রোববার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের পুলিশ ‘ফিলিস্তিন সমর্থক হিসাবে নিজেদেরকে উপস্থাপন করে এমন লোকদের উপস্থিতি এবং প্রচারের’ উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। ১২ অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত পুলিশ ৭৫২ জনকে জরিমানা করেছে এবং ৪৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ফরাসি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডারমানিন জনসাধারণের বিশৃঙ্খলার ঝুঁকির কথা উল্লেখ করে গত সপ্তাহে ফিলিস্তিনপন্থী বিক্ষোভের উপর দেশব্যাপী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।

জার্মানিতে বার্লিন পুলিশ হামাসের প্রাথমিক হামলার পর থেকে ফিলিস্তিনপন্থী বিক্ষোভের জন্য দুটি অনুরোধ মঞ্জুর করেছিল। তবে বিক্ষোভে যোগদানকারী অন্তত ১৯০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া ইসরায়েলের আগ্রাসন বন্ধে ইহুদি বার্লিনার্স এগেইনস্ট মিডল ইস্টার্ন ভায়োলেন্স নামে ইহুদিদের একটি সংগঠন এবং বর্ণবাদবিরোধী একটি সংগঠন অন্তত সাতটি সংগঠনের অনুমোদন না-মঞ্জুর করা হয়েছে।

বার্লিনের শিক্ষা কর্তৃপক্ষ গত সপ্তাহে জানিয়েছে, যেসব শিক্ষার্থী ফিলিস্তিনিদের প্রতীক কুফিয়া রুমাল পরবে কিংবা ‘ফিলিস্তিন স্বাধীন কর’ স্টিকার লাগাবে তাদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া হবে। ফরাসি ও জার্মান সরকারের ভাষ্য, হামাসের হামলার পর তারা ইহুদিদের সুরক্ষার প্রয়োজন বলে অনুভব করছেন। এ কারণে ইসরায়েল বিরোধী সব ধরনের কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ফিলিস্তিনিদের পক্ষে কথা বললেই জার্মানি ও ফ্রান্সে গ্রেপ্তার-জরিমানা

আপডেট সময় ১১:২৯:৫৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০২৩

ফিলিস্তিনিদের পক্ষে জমায়েত হয়ে কথা বললেই জরিমানা ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে জার্মানি ও ফ্রান্সে। বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানিয়েছে। বার্তা সংস্থাটি জানিয়েছে, রোববার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের পুলিশ ‘ফিলিস্তিন সমর্থক হিসাবে নিজেদেরকে উপস্থাপন করে এমন লোকদের উপস্থিতি এবং প্রচারের’ উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। ১২ অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত পুলিশ ৭৫২ জনকে জরিমানা করেছে এবং ৪৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ফরাসি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডারমানিন জনসাধারণের বিশৃঙ্খলার ঝুঁকির কথা উল্লেখ করে গত সপ্তাহে ফিলিস্তিনপন্থী বিক্ষোভের উপর দেশব্যাপী নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।

জার্মানিতে বার্লিন পুলিশ হামাসের প্রাথমিক হামলার পর থেকে ফিলিস্তিনপন্থী বিক্ষোভের জন্য দুটি অনুরোধ মঞ্জুর করেছিল। তবে বিক্ষোভে যোগদানকারী অন্তত ১৯০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া ইসরায়েলের আগ্রাসন বন্ধে ইহুদি বার্লিনার্স এগেইনস্ট মিডল ইস্টার্ন ভায়োলেন্স নামে ইহুদিদের একটি সংগঠন এবং বর্ণবাদবিরোধী একটি সংগঠন অন্তত সাতটি সংগঠনের অনুমোদন না-মঞ্জুর করা হয়েছে।

বার্লিনের শিক্ষা কর্তৃপক্ষ গত সপ্তাহে জানিয়েছে, যেসব শিক্ষার্থী ফিলিস্তিনিদের প্রতীক কুফিয়া রুমাল পরবে কিংবা ‘ফিলিস্তিন স্বাধীন কর’ স্টিকার লাগাবে তাদের স্কুল থেকে বাদ দেওয়া হবে। ফরাসি ও জার্মান সরকারের ভাষ্য, হামাসের হামলার পর তারা ইহুদিদের সুরক্ষার প্রয়োজন বলে অনুভব করছেন। এ কারণে ইসরায়েল বিরোধী সব ধরনের কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করা হয়েছে।