ঢাকা ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চলছে দুর্গাপূজার শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

  • নিজস্ব সংবাদ
  • আপডেট সময় ০১:১৫:১১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০২৩
  • ১২০ বার পড়া হয়েছে

চলছে দুর্গাপূজার শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

দরজায় কড়া নাড়ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আগামী ২০ অক্টোবর বোধন ও মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হবে শারদীয় দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। এরইমধ্যে প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ করেছেন শিল্পীরা। এখন চলছে রং-তুলির আঁচড়ে প্রতিমা রাঙিয়ে তোলার কাজ। পাশাপাশি চলছে সাজ-সজ্জা ও আলোকসজ্জার কাজ। চণ্ডীপাঠ, ঢাকের বোল, শঙ্খের শব্দ আর উলুধ্বনিতে আমন্ত্রিত হবেন দেবী দুর্গা।

দেবী দুর্গাকে বরণ করতে ইতোমধ্যেই সাড়া পড়েছে পাড়ায় পাড়ায়। মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। পূজা উপলক্ষে শেষ মুহূর্তের কাজ চলছে জাতীয় মন্দির রাজধানীর ঢাকেশ্বরীতেও। আর দুর্গোৎসব নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা

সরেজমিনে জাতীয় মন্দির ঢাকেশ্বরীতে দেখা যায়, সেখানে চলছে পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি। একদিকে চলছে মঞ্চ, প্যান্ডেল আর তোরণের নির্মাণের কাজ। অন্যদিকে বালু দিয়ে খানাখন্দগুলো ভরাটের পাশাপাশি চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। পুরোপুরি প্রস্তুত না হওয়ায় মণ্ডপের পাশেই রাখা হয়েছে নির্মাণসামগ্রী।

ঢাকেশ্বরীর প্রতিমা রক্ষণাবেক্ষণে নিয়োজিত পুরোহিত বরুণ জানান, ইতোমধ্যে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। এখন শুধু রং করা বাকি আছে। রং করা শেষ হলে ষষ্ঠীর আগেই মন্দিরে নতুন প্রতিমা বসানো হবে।

পূজার আয়োজনের পাশাপাশি মন্দির এলাকায় দেখা গেছে, আয়োজকদের ব্যস্ততাও। প্রতিবছর ঢাকেশ্বরী মন্দির প্রাঙ্গণে প্যান্ডেল লাগানো, চেয়ার সরবরাহ এবং মঞ্চের কাজ করে আরজু ডেকোরেটর। এবারও এসব কাজের দায়িত্ব প্রতিষ্ঠানটির।

আরজু ডেকোরেটরের স্বত্বাধিকারি জীবন চৌধুরী জানান, দুই সপ্তাহ আগে থেকেই তারা কার্যক্রম শুরু করেছেন। আগামীকালের মধ্যেই মঞ্চ, প্যান্ডেল আর তোরণের নির্মাণকাজ শেষ হবে। মাঠে বাঁশের বেড়া দেওয়া ও চেয়ার বসানোর কাজসহ অন্যান্য কাজও পূজা শুরুর আগেই শেষ করতে পারবেন বলে জানান তিনি।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, শুক্রবার (২০ অক্টোবর) দুর্গা দেবীর ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠিবিহিত পূজা, পরদিন শনিবার মহাসপ্তমীবিহিত পূজা, রবিবার মহাষ্টমীবিহিত পূজা, সোমবার মহানবমীবিহিত পূজা এবং মঙ্গলবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন ও প্রতিমা বিসর্জন হবে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের হিসেবে চলতি বছর সারা দেশে ৩২ হাজার ৪০৮ মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ঢাকা মহানগরে পূজা হবে ২৪৫টি মণ্ডপে।

ঢাকা ভয়েস/টিআই

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

পিটার হাসকে হুমকিদাতা ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

চলছে দুর্গাপূজার শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

আপডেট সময় ০১:১৫:১১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০২৩

দরজায় কড়া নাড়ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আগামী ২০ অক্টোবর বোধন ও মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হবে শারদীয় দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। এরইমধ্যে প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ করেছেন শিল্পীরা। এখন চলছে রং-তুলির আঁচড়ে প্রতিমা রাঙিয়ে তোলার কাজ। পাশাপাশি চলছে সাজ-সজ্জা ও আলোকসজ্জার কাজ। চণ্ডীপাঠ, ঢাকের বোল, শঙ্খের শব্দ আর উলুধ্বনিতে আমন্ত্রিত হবেন দেবী দুর্গা।

দেবী দুর্গাকে বরণ করতে ইতোমধ্যেই সাড়া পড়েছে পাড়ায় পাড়ায়। মণ্ডপে মণ্ডপে চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি। পূজা উপলক্ষে শেষ মুহূর্তের কাজ চলছে জাতীয় মন্দির রাজধানীর ঢাকেশ্বরীতেও। আর দুর্গোৎসব নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা

সরেজমিনে জাতীয় মন্দির ঢাকেশ্বরীতে দেখা যায়, সেখানে চলছে পূজা উদযাপনের প্রস্তুতি। একদিকে চলছে মঞ্চ, প্যান্ডেল আর তোরণের নির্মাণের কাজ। অন্যদিকে বালু দিয়ে খানাখন্দগুলো ভরাটের পাশাপাশি চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। পুরোপুরি প্রস্তুত না হওয়ায় মণ্ডপের পাশেই রাখা হয়েছে নির্মাণসামগ্রী।

ঢাকেশ্বরীর প্রতিমা রক্ষণাবেক্ষণে নিয়োজিত পুরোহিত বরুণ জানান, ইতোমধ্যে প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। এখন শুধু রং করা বাকি আছে। রং করা শেষ হলে ষষ্ঠীর আগেই মন্দিরে নতুন প্রতিমা বসানো হবে।

পূজার আয়োজনের পাশাপাশি মন্দির এলাকায় দেখা গেছে, আয়োজকদের ব্যস্ততাও। প্রতিবছর ঢাকেশ্বরী মন্দির প্রাঙ্গণে প্যান্ডেল লাগানো, চেয়ার সরবরাহ এবং মঞ্চের কাজ করে আরজু ডেকোরেটর। এবারও এসব কাজের দায়িত্ব প্রতিষ্ঠানটির।

আরজু ডেকোরেটরের স্বত্বাধিকারি জীবন চৌধুরী জানান, দুই সপ্তাহ আগে থেকেই তারা কার্যক্রম শুরু করেছেন। আগামীকালের মধ্যেই মঞ্চ, প্যান্ডেল আর তোরণের নির্মাণকাজ শেষ হবে। মাঠে বাঁশের বেড়া দেওয়া ও চেয়ার বসানোর কাজসহ অন্যান্য কাজও পূজা শুরুর আগেই শেষ করতে পারবেন বলে জানান তিনি।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, শুক্রবার (২০ অক্টোবর) দুর্গা দেবীর ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠিবিহিত পূজা, পরদিন শনিবার মহাসপ্তমীবিহিত পূজা, রবিবার মহাষ্টমীবিহিত পূজা, সোমবার মহানবমীবিহিত পূজা এবং মঙ্গলবার দশমীবিহিত পূজা সমাপন ও প্রতিমা বিসর্জন হবে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের হিসেবে চলতি বছর সারা দেশে ৩২ হাজার ৪০৮ মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ঢাকা মহানগরে পূজা হবে ২৪৫টি মণ্ডপে।

ঢাকা ভয়েস/টিআই