ঢাকা ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাজায় অবিলম্বে যুদ্ধবিরতি চেয়ে বাইডেনকে মার্কিন ১৭৮ আইনবিশেষজ্ঞের চিঠি

গাজায় হামলা বন্ধ ও যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে ইসরায়েলকে চাপ দিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির ১৭৮ আইনবিশেষজ্ঞ। তাঁদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রভাবশালী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের শিক্ষক রয়েছেন। তাঁরা অবিলম্বে গাজায় যুদ্ধবিরতির দাবি জানিয়েছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন আজ বুধবার ইসরায়েল সফরে যাওয়ার কথা। তাঁর এ সফরের আগমুহূর্তে আইনবিশেষজ্ঞরা তাঁকে ওই চিঠি লিখেছেন। চিঠিতে আইনবিশেষজ্ঞরা বাইডেনকে ‘সরাসরি হস্তক্ষেপ’ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

এরই মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার রাতে মধ্য গাজার আল-আহলি আরব নামের একটি হাসপাতালে বোমা হামলা চালানো হয়েছে। এ হামলায় প্রাণ গেছে অন্তত ৫০০ জনের।

মার্কিন আইনবিশেষজ্ঞদের দেওয়া চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘গাজায় ইসরায়েলি সরকারের ক্রমবর্ধমান প্রতিক্রিয়ার নিন্দা জানাই আমরা। আমাদের মনে হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্র সরকারের আপাত সমর্থনে গাজায় নিরস্ত্র পরিবার ও শিশুদের হত্যা ও বাস্তুচ্যুত করা হচ্ছে।’

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা নৃশংসতায় গাজা উপত্যকায় তিন হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৯৪০ শিশু ও ১ হাজার ৩২ নারী রয়েছেন।

আইনবিশেষজ্ঞরা বলছেন, গাজায় বেসামরিক নাগরিকদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান মৃতের সংখ্যা শুধু সরাসরি সামরিক হামলার ফলাফল নয়, বরং ইসরায়েলি সরকারের পক্ষ থেকে গাজাবাসীকে দিনের পর দিন ধরে মৌলিক চাহিদা থেকে বঞ্চিত রাখারও ফল।

জনপ্রিয় সংবাদ

গাজায় অবিলম্বে যুদ্ধবিরতি চেয়ে বাইডেনকে মার্কিন ১৭৮ আইনবিশেষজ্ঞের চিঠি

আপডেট সময় ১২:৩২:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০২৩

গাজায় হামলা বন্ধ ও যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে ইসরায়েলকে চাপ দিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির ১৭৮ আইনবিশেষজ্ঞ। তাঁদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রভাবশালী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের শিক্ষক রয়েছেন। তাঁরা অবিলম্বে গাজায় যুদ্ধবিরতির দাবি জানিয়েছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন আজ বুধবার ইসরায়েল সফরে যাওয়ার কথা। তাঁর এ সফরের আগমুহূর্তে আইনবিশেষজ্ঞরা তাঁকে ওই চিঠি লিখেছেন। চিঠিতে আইনবিশেষজ্ঞরা বাইডেনকে ‘সরাসরি হস্তক্ষেপ’ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

এরই মধ্যে গতকাল মঙ্গলবার রাতে মধ্য গাজার আল-আহলি আরব নামের একটি হাসপাতালে বোমা হামলা চালানো হয়েছে। এ হামলায় প্রাণ গেছে অন্তত ৫০০ জনের।

মার্কিন আইনবিশেষজ্ঞদের দেওয়া চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘গাজায় ইসরায়েলি সরকারের ক্রমবর্ধমান প্রতিক্রিয়ার নিন্দা জানাই আমরা। আমাদের মনে হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্র সরকারের আপাত সমর্থনে গাজায় নিরস্ত্র পরিবার ও শিশুদের হত্যা ও বাস্তুচ্যুত করা হচ্ছে।’

ফিলিস্তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা নৃশংসতায় গাজা উপত্যকায় তিন হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৯৪০ শিশু ও ১ হাজার ৩২ নারী রয়েছেন।

আইনবিশেষজ্ঞরা বলছেন, গাজায় বেসামরিক নাগরিকদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান মৃতের সংখ্যা শুধু সরাসরি সামরিক হামলার ফলাফল নয়, বরং ইসরায়েলি সরকারের পক্ষ থেকে গাজাবাসীকে দিনের পর দিন ধরে মৌলিক চাহিদা থেকে বঞ্চিত রাখারও ফল।