ঢাকা ১০:১৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের টানা ৪ ঘন্টা ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ

কোটা সংস্কারের দাবিতে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সমন্বয়ে সকাল ১১ থেকে দুপুর পর্যন্ত ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ করেন পাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (১০ জুলাই) সকাল ১১ টায় শহীদ মিনার থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রদক্ষিণ করে এসে প্রধান ফটকের সামনে ঢাকা-পাবনা মহাসড়কে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেয়। এতে করে টানা ৪ ঘন্টা মহাসড়কটি দিয়ে যান চলাচল বন্ধ থাকে, তবে শিক্ষার্থীরা নিজ দ্বায়িত্বে জরুরী প্রয়োজন ও এম্বুল্যান্স চলাচলের ব্যবস্থা করে দেন।

এসময় তারা ‘একশন একশন ডাইরেক্ট একশন’, ‘জেগেছে রে জেগেছে,ছাত্রসমাজ জেগেছে’, ‘লেগেছে রে লেগেছে রক্তে আগুন লেগেছে’, ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই’, ‘সারা বাংলায় খবর দে কোটা প্রথার কবর দে’,  ‘মেধা না কোটা? কোটা কোটা’, দালালি না রাজপথ? রাজপথ রাজপথ’ সহ কোটা বিরোধী নানা স্লোগান দেন।

শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘১৮এর পরিপত্র পুনর্বহালসহ, সরকারি সকল গ্রেডের চাকরিতে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠীর জন্য কোটাকে ন্যূনতম মাত্রায় এনে সংসদে আইন পাশ করে কোটাপদ্ধতিকে সংশোধন করতে হবে।’

তারা আরো বলেন, ‘এই আন্দোলন আমাদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন। আমরা আমাদের অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন থেকে পিছু হটবো না।’

দুপুর ২.৩০ মিনিটের পর শিক্ষার্থীরা মহাসড়ক ত্যাগ করেন এবং কেন্দ্রের সাথে সমন্বয় করে পরবর্তী কার্যক্রম করা হবে বলে ঘোষণা দেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর প্রশ্নই নেই: বাইডেন

পাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের টানা ৪ ঘন্টা ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ

আপডেট সময় ০৬:৫৪:১৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

কোটা সংস্কারের দাবিতে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সমন্বয়ে সকাল ১১ থেকে দুপুর পর্যন্ত ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ করেন পাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (১০ জুলাই) সকাল ১১ টায় শহীদ মিনার থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রদক্ষিণ করে এসে প্রধান ফটকের সামনে ঢাকা-পাবনা মহাসড়কে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নেয়। এতে করে টানা ৪ ঘন্টা মহাসড়কটি দিয়ে যান চলাচল বন্ধ থাকে, তবে শিক্ষার্থীরা নিজ দ্বায়িত্বে জরুরী প্রয়োজন ও এম্বুল্যান্স চলাচলের ব্যবস্থা করে দেন।

এসময় তারা ‘একশন একশন ডাইরেক্ট একশন’, ‘জেগেছে রে জেগেছে,ছাত্রসমাজ জেগেছে’, ‘লেগেছে রে লেগেছে রক্তে আগুন লেগেছে’, ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই’, ‘সারা বাংলায় খবর দে কোটা প্রথার কবর দে’,  ‘মেধা না কোটা? কোটা কোটা’, দালালি না রাজপথ? রাজপথ রাজপথ’ সহ কোটা বিরোধী নানা স্লোগান দেন।

শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘১৮এর পরিপত্র পুনর্বহালসহ, সরকারি সকল গ্রেডের চাকরিতে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠীর জন্য কোটাকে ন্যূনতম মাত্রায় এনে সংসদে আইন পাশ করে কোটাপদ্ধতিকে সংশোধন করতে হবে।’

তারা আরো বলেন, ‘এই আন্দোলন আমাদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন। আমরা আমাদের অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন থেকে পিছু হটবো না।’

দুপুর ২.৩০ মিনিটের পর শিক্ষার্থীরা মহাসড়ক ত্যাগ করেন এবং কেন্দ্রের সাথে সমন্বয় করে পরবর্তী কার্যক্রম করা হবে বলে ঘোষণা দেন।