ঢাকা ০৪:৩৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে শিবিরের এ প্লাস সংবর্ধনা

এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ছাত্রশিবির সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, “তোমরা যারা এই পরীক্ষায় ভালো ফলাফল অর্জন করেছ, তারা কেবল সফলতা অর্জনের অসংখ্য ধাপের প্রথম ধাপ অতিক্রম করেছ। তোমাদের আরও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। ডিজিটাল ডিভাইস, গেইমের আসক্তিসহ সস্তা বিনোদন তোমাদের চূড়ান্ত সফলতার পথে অন্তরায় হতে পারে। তাই এখন থেকেই এগুলো পরিহার করে চলতে হবে।”

রবিবার (১৯ মে) ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ শাখা কর্তৃক আয়োজিত এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষা-২০২৪ এ জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ শাখার সেক্রেটারি ইলিয়াছ শাহরিয়ারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শাখা সভাপতি মো. শহীদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরা সদস্য, চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর ও সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরী। এ সময় শাখার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কেন্দ্রীয় সভাপতি বলেন, “জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের আরাম-আয়েশের জীবন ত্যাগ করে কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। অনেকের আনন্দ-বিনোদন, বন্ধুদের সাথে মধুর আড্ডা, অনলাইনে সময় অপচয়সহ সাময়িক শত আনন্দ বিসর্জন দিতে হয়েছে। এর ফলস্বরূপ তারা একটা সম্মানজন রেজাল্ট পেয়েছে। তোমাদের মধ্যে যারা ভবিষ্যতেও এসব সস্তা বিনোদন থেকে দূরে থাকতে পারবে, তারা পরিশ্রমের ধারা অব্যাহত রাখতে পারবে। যিনি জ্ঞান দান করেন সেই মহান সৃষ্টিকর্তার সাথে সম্পর্ক রাখতে পারবে, তারাই চূড়ান্তভাবে সফল হতে পারবে। এর পাশাপাশি তোমাদের অসৎ সঙ্গ পরিত্যাগ করে সৎ ও নিষ্ঠাবানদের সঙ্গী হতে হবে। ছাত্রশিবির ক্যাম্পাসগুলোতে মেধাবীদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত হয়ে আছে। ছাত্রশিবির তোমাদের সৎ, আদর্শবান এবং দুনিয়া ও আখেরাতে চূড়ান্ত সফল মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিবে, ইনশাআল্লাহ।”

তিনি আরও বলেন, “লক্ষ্য নির্ধারণ করে এখন থেকেই লক্ষ্য অর্জনে সময় ও মেধাকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। তোমাদের দেশপ্রেমিক হতে হবে। দুর্নীতি, অন্যায়, রাহাজানি, পাপাচার থেকে দেশকে মুক্ত করার শপথ এবং পারিবারিক শিক্ষাকে কাজে লাগাতে হবে। পারিবারিক বন্ধনকে শক্তিশালী করার প্রত্যয় গ্রহণ করতে হবে। সর্বোপরি দেশ ও জাতির একজন সুনাগরিক হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। সেজন্য তোমাদের ওহিভিত্তিক জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি নিজের জীবনে অর্জিত শিক্ষাকে বাস্তবায়ন করতে হবে।”

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগরীর আমীর শাহজাহান চৌধুরী বলনে, “সুশিক্ষার অভাবে সমাজে অপরাধ বাড়ছে। কিশোররা অপরাধপ্রবণ হয়ে উঠছে। পড়া-মহল্লায় কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। তাই দ্বীনি শিক্ষা ছাড়া শুধুমাত্র জাগতিক শিক্ষা দিয়ে আমাদের ভালো মানুষ উপহার দিতে পারবে না। সমাজের এসব অন্যায়-অনাচার, দুর্নীতি, ঘুষ, খুন, ধর্ষণ দূর করতে হলে জাগতিক শিক্ষার পাশাপাশি দ্বীনি শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে।”

বেনজীর আহমেদকে আর সময় দেওয়া হবে না: দুদকের আইনজীবী

চট্টগ্রামে শিবিরের এ প্লাস সংবর্ধনা

আপডেট সময় ০৭:৫৩:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ছাত্রশিবির সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, “তোমরা যারা এই পরীক্ষায় ভালো ফলাফল অর্জন করেছ, তারা কেবল সফলতা অর্জনের অসংখ্য ধাপের প্রথম ধাপ অতিক্রম করেছ। তোমাদের আরও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। ডিজিটাল ডিভাইস, গেইমের আসক্তিসহ সস্তা বিনোদন তোমাদের চূড়ান্ত সফলতার পথে অন্তরায় হতে পারে। তাই এখন থেকেই এগুলো পরিহার করে চলতে হবে।”

রবিবার (১৯ মে) ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ শাখা কর্তৃক আয়োজিত এসএসসি, দাখিল ও সমমান পরীক্ষা-২০২৪ এ জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ শাখার সেক্রেটারি ইলিয়াছ শাহরিয়ারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন শাখা সভাপতি মো. শহীদুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরা সদস্য, চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর ও সাবেক এমপি শাহজাহান চৌধুরী। এ সময় শাখার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কেন্দ্রীয় সভাপতি বলেন, “জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের আরাম-আয়েশের জীবন ত্যাগ করে কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। অনেকের আনন্দ-বিনোদন, বন্ধুদের সাথে মধুর আড্ডা, অনলাইনে সময় অপচয়সহ সাময়িক শত আনন্দ বিসর্জন দিতে হয়েছে। এর ফলস্বরূপ তারা একটা সম্মানজন রেজাল্ট পেয়েছে। তোমাদের মধ্যে যারা ভবিষ্যতেও এসব সস্তা বিনোদন থেকে দূরে থাকতে পারবে, তারা পরিশ্রমের ধারা অব্যাহত রাখতে পারবে। যিনি জ্ঞান দান করেন সেই মহান সৃষ্টিকর্তার সাথে সম্পর্ক রাখতে পারবে, তারাই চূড়ান্তভাবে সফল হতে পারবে। এর পাশাপাশি তোমাদের অসৎ সঙ্গ পরিত্যাগ করে সৎ ও নিষ্ঠাবানদের সঙ্গী হতে হবে। ছাত্রশিবির ক্যাম্পাসগুলোতে মেধাবীদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত হয়ে আছে। ছাত্রশিবির তোমাদের সৎ, আদর্শবান এবং দুনিয়া ও আখেরাতে চূড়ান্ত সফল মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিবে, ইনশাআল্লাহ।”

তিনি আরও বলেন, “লক্ষ্য নির্ধারণ করে এখন থেকেই লক্ষ্য অর্জনে সময় ও মেধাকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। তোমাদের দেশপ্রেমিক হতে হবে। দুর্নীতি, অন্যায়, রাহাজানি, পাপাচার থেকে দেশকে মুক্ত করার শপথ এবং পারিবারিক শিক্ষাকে কাজে লাগাতে হবে। পারিবারিক বন্ধনকে শক্তিশালী করার প্রত্যয় গ্রহণ করতে হবে। সর্বোপরি দেশ ও জাতির একজন সুনাগরিক হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। সেজন্য তোমাদের ওহিভিত্তিক জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি নিজের জীবনে অর্জিত শিক্ষাকে বাস্তবায়ন করতে হবে।”

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগরীর আমীর শাহজাহান চৌধুরী বলনে, “সুশিক্ষার অভাবে সমাজে অপরাধ বাড়ছে। কিশোররা অপরাধপ্রবণ হয়ে উঠছে। পড়া-মহল্লায় কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। তাই দ্বীনি শিক্ষা ছাড়া শুধুমাত্র জাগতিক শিক্ষা দিয়ে আমাদের ভালো মানুষ উপহার দিতে পারবে না। সমাজের এসব অন্যায়-অনাচার, দুর্নীতি, ঘুষ, খুন, ধর্ষণ দূর করতে হলে জাগতিক শিক্ষার পাশাপাশি দ্বীনি শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে।”