ঢাকা ১২:৫৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

ভিসানীতি নিয়ে সরকার কোনও চাপ অনুভব করে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ভিসানীতি নিয়ে সরকার কোনও চাপ অনুভব করে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসানীতি নিয়ে সরকার কোনও চাপ অনুভব করে না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, যারা (যুক্তরাষ্ট্রের) ভিসার জন্য আবেদন করে তাদের জন্য হয়তো ভিসানীতি দুঃসংবাদ, যদি দুষ্টু লোক হয়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের একটি বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার (৪ অক্টোবর) ভিসানীতি নিয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভিসানীতি নিয়ে দুশ্চিন্তার কোনও কারণ নেই, মাথাব্যথার কারণ নেই। কেননা, এ নিয়ে আমরা কোনও চাপ অনুভব করি না।

ড. মোমেন বলেন, ভিসানীতি আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কোনও কিছু নয়। যারা ভিসার জন্য আবেদন করেন, তাদের জন্য হয়তো দুঃসংবাদ, যদি দুষ্টু লোক হয়। আমেরিকা তো সবাইকে ভিসা দেয় না। কয়েক হাজার লোক বছরে ভিসার জন্য আবেদন করেন। এর মধ্যে কত লোককে ভিসা দেয়? পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ভিসানীতি সব দেশে আছে। আমাদের দেশেও আছে। আমরা সবাইকে ভিসা দিই না। আমরা ব্যক্তিবিশেষ কিংবা কোনও দেশকে কম ভিসা দিই। আমি যেটা বুঝতে পারি, যুক্তরাষ্ট্রের ভিসানীতির মূল উদ্দেশ্য যাতে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়। আমরাও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। তারা আমাদের সঙ্গে একমত। তারা আমাদের হাতকে শক্ত করার জন্য ভিসানীতি চায়।

তিনি বলেন, আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। আমেরিকা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চায়। যাতে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, সেজন্য তারা সহায়কের ভূমিকা পালন করবে। আমাদের সাহায্য করবে। আর যারা নির্বাচনে আসবে না আমেরিকা তাদের পক্ষে নেই। তারা বলেছে, তারা কোনও দলেই নেই। কিন্তু তারা বিশ্বাস করে, নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তনের একমাত্র তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে এবং গণতান্ত্রিক সরকার চায়। আমরাও গণতান্ত্রিক সরকার চাই।

যুক্তরাষ্ট্র সফরে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আলোচনার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তারা আমাদের সঙ্গে একমত। তারাও বলছে, রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়া উচিত। কিন্তু তারা মনে করে, মিয়ানমারে যদি গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা না হয় তাহলে জীবনমানের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে না। এজন্য আগে ওখানে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হোক তারপর এদের পাঠান। তারা বলছে, এখন রোহিঙ্গাদের এদেশে রেখে কাজকর্ম দেন। তাদের দক্ষতার ট্রেনিং দেন। উন্নত দেশগুলোতে প্রত্যাবাসন বলতে কিছু নেই। ওখানে রিফিউজি গেলে রেখে দেওয়া হয়। তারা সেই চিন্তাভাবনায় থাকে। তারা মনে করে, বাংলাদেশ তাদের রেখে দিতে পারে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে মোমেন বলেন, বিদেশিরা মূলত বিক্রি করতে আসে। এজন্য চাপ সৃষ্টি করে যেন তার কাছ থেকে কেনে। আমেরিকা বিক্রি করতে চায়, ফ্রান্স বিক্রি করতে চায়, ব্রিটিশরা বিক্রি করতে চায়, ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিক্রি করতে চায়।

ভারতের গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রশ্নকারী সাংবাদিকের উদ্দেশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিদেশিদের এত মুখাপেক্ষী হয়ে থাকেন কেন? আপনার মগজে বিদেশি বিদেশি কেন। নিজের ওপর আত্মবিশ্বাস তৈরি করতে পারেন না? তিনি আরও বলেন, ওগুলো বাদ দেন। নিজের ওপর আত্মবিশ্বাস আনেন। শেখ হাসিনার আত্মবিশ্বাস আছে। আপনারা দেশের প্রতি, নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস বাড়ান।

ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে— ‘বাংলাদেশের গণতন্ত্র আইসিউতে আছে’। এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অবস্থান জানতে চাওয়া হয়। প্রশ্নকারী সাংবাদিককে তিনি বলেন, এরকম বহু লোক বহু প্রতিবেদন তৈরি করবে। আপনি নিজে প্রতিবেদন তৈরি করেন। অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকবেন না। আল্লার ওয়াস্তে এই বদ অভ্যাসটা বাদ দেন। অন্য কেউ কিছু বললে লাফাইয়া উঠবেন। এটা বাদ দিয়ে নিজে পরীক্ষা করে দেখেন কী অবস্থা। জনগণ যদি ভোট দেয়, ওটাই গ্রহণযোগ্য নির্বাচন।

জনপ্রিয় সংবাদ

ইরানের প্রেসিডেন্টের হেলিকপ্টারের সন্ধান মিলেছে , ‘প্রাণের অস্তিত্ব নেই’

ভিসানীতি নিয়ে সরকার কোনও চাপ অনুভব করে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৯:৩৭:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ৪ অক্টোবর ২০২৩

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসানীতি নিয়ে সরকার কোনও চাপ অনুভব করে না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, যারা (যুক্তরাষ্ট্রের) ভিসার জন্য আবেদন করে তাদের জন্য হয়তো ভিসানীতি দুঃসংবাদ, যদি দুষ্টু লোক হয়। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের একটি বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার (৪ অক্টোবর) ভিসানীতি নিয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভিসানীতি নিয়ে দুশ্চিন্তার কোনও কারণ নেই, মাথাব্যথার কারণ নেই। কেননা, এ নিয়ে আমরা কোনও চাপ অনুভব করি না।

ড. মোমেন বলেন, ভিসানীতি আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কোনও কিছু নয়। যারা ভিসার জন্য আবেদন করেন, তাদের জন্য হয়তো দুঃসংবাদ, যদি দুষ্টু লোক হয়। আমেরিকা তো সবাইকে ভিসা দেয় না। কয়েক হাজার লোক বছরে ভিসার জন্য আবেদন করেন। এর মধ্যে কত লোককে ভিসা দেয়? পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ভিসানীতি সব দেশে আছে। আমাদের দেশেও আছে। আমরা সবাইকে ভিসা দিই না। আমরা ব্যক্তিবিশেষ কিংবা কোনও দেশকে কম ভিসা দিই। আমি যেটা বুঝতে পারি, যুক্তরাষ্ট্রের ভিসানীতির মূল উদ্দেশ্য যাতে সুষ্ঠু নির্বাচন হয়। আমরাও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। তারা আমাদের সঙ্গে একমত। তারা আমাদের হাতকে শক্ত করার জন্য ভিসানীতি চায়।

তিনি বলেন, আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। আমেরিকা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চায়। যাতে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, সেজন্য তারা সহায়কের ভূমিকা পালন করবে। আমাদের সাহায্য করবে। আর যারা নির্বাচনে আসবে না আমেরিকা তাদের পক্ষে নেই। তারা বলেছে, তারা কোনও দলেই নেই। কিন্তু তারা বিশ্বাস করে, নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তনের একমাত্র তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে এবং গণতান্ত্রিক সরকার চায়। আমরাও গণতান্ত্রিক সরকার চাই।

যুক্তরাষ্ট্র সফরে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আলোচনার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তারা আমাদের সঙ্গে একমত। তারাও বলছে, রোহিঙ্গাদের ফেরত যাওয়া উচিত। কিন্তু তারা মনে করে, মিয়ানমারে যদি গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা না হয় তাহলে জীবনমানের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে না। এজন্য আগে ওখানে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হোক তারপর এদের পাঠান। তারা বলছে, এখন রোহিঙ্গাদের এদেশে রেখে কাজকর্ম দেন। তাদের দক্ষতার ট্রেনিং দেন। উন্নত দেশগুলোতে প্রত্যাবাসন বলতে কিছু নেই। ওখানে রিফিউজি গেলে রেখে দেওয়া হয়। তারা সেই চিন্তাভাবনায় থাকে। তারা মনে করে, বাংলাদেশ তাদের রেখে দিতে পারে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে মোমেন বলেন, বিদেশিরা মূলত বিক্রি করতে আসে। এজন্য চাপ সৃষ্টি করে যেন তার কাছ থেকে কেনে। আমেরিকা বিক্রি করতে চায়, ফ্রান্স বিক্রি করতে চায়, ব্রিটিশরা বিক্রি করতে চায়, ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিক্রি করতে চায়।

ভারতের গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রশ্নকারী সাংবাদিকের উদ্দেশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিদেশিদের এত মুখাপেক্ষী হয়ে থাকেন কেন? আপনার মগজে বিদেশি বিদেশি কেন। নিজের ওপর আত্মবিশ্বাস তৈরি করতে পারেন না? তিনি আরও বলেন, ওগুলো বাদ দেন। নিজের ওপর আত্মবিশ্বাস আনেন। শেখ হাসিনার আত্মবিশ্বাস আছে। আপনারা দেশের প্রতি, নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস বাড়ান।

ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে— ‘বাংলাদেশের গণতন্ত্র আইসিউতে আছে’। এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অবস্থান জানতে চাওয়া হয়। প্রশ্নকারী সাংবাদিককে তিনি বলেন, এরকম বহু লোক বহু প্রতিবেদন তৈরি করবে। আপনি নিজে প্রতিবেদন তৈরি করেন। অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকবেন না। আল্লার ওয়াস্তে এই বদ অভ্যাসটা বাদ দেন। অন্য কেউ কিছু বললে লাফাইয়া উঠবেন। এটা বাদ দিয়ে নিজে পরীক্ষা করে দেখেন কী অবস্থা। জনগণ যদি ভোট দেয়, ওটাই গ্রহণযোগ্য নির্বাচন।