ঢাকা ১০:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার উপায় জানালেন আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জন্য আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ মহানুভবতা দেখিয়েছেন। আইনে এর চেয়ে বেশি কিছু করার সুযোগ নেই। এটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত না সেটা প্রমাণ করতে আর কত মহানুভবতা দেখাতে হবে?’ আজ বুধবার সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ফৌজদারী কার্যবিধির ৪০১ ধারায় বিএনপির আবেদন নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এখন অভিযুক্ত ব্যক্তির (খালেদা জিয়ার) স্থায়ী মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ আছে। তবে অভিযুক্ত ব্যক্তি স্থায়ী মুক্তির আর বিদেশে নেওয়ার জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে দোষ স্বীকার করবে কিনা- সেটা তাদের বিষয়। সে বিষয়ে আমার কোনো মন্তব্য নেই। তিনি আরো বলেন, ৪০১ ধারা যখন নির্বাহীপ্রধান প্রয়োগ করেন তখন বিচার বিভাগের হস্তক্ষেপ করা ঠিক না। বেগম জিয়াকে বিদেশ নেওয়ার বিষয়ে বিএনপির সঙ্গে কোনো আলোচনা হয় নাই। বেগম জিয়ার পরিবার দরখাস্ত করেছিলেন সেই দরখাস্ত নিষ্পত্তি করা হয়েছে। আইনে কোথাও তাকে বিদেশে নেওয়ার কথা বলা নাই। আনিসুল হক বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যাচার করেছেন।

শেখ হাসিনার সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ার তুলনা করার চেষ্টা করেছেন বিএনপির মহাসচিব। ওয়ান ইলেভেনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইন মেনেই বিদেশে গিয়েছেন। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শেখ হাসিনার তখন বিদেশ যাওয়া সম্পর্কে অনেক মিথ্যাচার করেছেন। এর তীব্র নিন্দা জানাই।

খালেদা জিয়ার বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার উপায় জানালেন আইনমন্ত্রী

আপডেট সময় ০২:৫১:২১ অপরাহ্ন, বুধবার, ৪ অক্টোবর ২০২৩

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জন্য আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ মহানুভবতা দেখিয়েছেন। আইনে এর চেয়ে বেশি কিছু করার সুযোগ নেই। এটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত না সেটা প্রমাণ করতে আর কত মহানুভবতা দেখাতে হবে?’ আজ বুধবার সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ফৌজদারী কার্যবিধির ৪০১ ধারায় বিএনপির আবেদন নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এখন অভিযুক্ত ব্যক্তির (খালেদা জিয়ার) স্থায়ী মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ আছে। তবে অভিযুক্ত ব্যক্তি স্থায়ী মুক্তির আর বিদেশে নেওয়ার জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে দোষ স্বীকার করবে কিনা- সেটা তাদের বিষয়। সে বিষয়ে আমার কোনো মন্তব্য নেই। তিনি আরো বলেন, ৪০১ ধারা যখন নির্বাহীপ্রধান প্রয়োগ করেন তখন বিচার বিভাগের হস্তক্ষেপ করা ঠিক না। বেগম জিয়াকে বিদেশ নেওয়ার বিষয়ে বিএনপির সঙ্গে কোনো আলোচনা হয় নাই। বেগম জিয়ার পরিবার দরখাস্ত করেছিলেন সেই দরখাস্ত নিষ্পত্তি করা হয়েছে। আইনে কোথাও তাকে বিদেশে নেওয়ার কথা বলা নাই। আনিসুল হক বলেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ সম্মেলনে মিথ্যাচার করেছেন।

শেখ হাসিনার সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ার তুলনা করার চেষ্টা করেছেন বিএনপির মহাসচিব। ওয়ান ইলেভেনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইন মেনেই বিদেশে গিয়েছেন। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শেখ হাসিনার তখন বিদেশ যাওয়া সম্পর্কে অনেক মিথ্যাচার করেছেন। এর তীব্র নিন্দা জানাই।