ঢাকা ০৩:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

  • ফখরুল ইসলাম
  • আপডেট সময় ০৬:৩২:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • 43

রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু বলেছেন, ‘আসন্ন রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না। ভারতসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ রাখতে পারি সে জন্য আমরা কাজ করব। ইতিমধ্যে পেঁয়াজ ও চিনি সরবরাহে ভারত রাজি হয়েছে।’ আজ শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে নিজ বাসভবনে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে চারটি পণ্যের ক্যারিট (আমদানি শুল্ক) কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ সপ্তাহে আমদানিকারক ও যারা তৈরি করে তাদের সঙ্গে বসে তেলের দাম ঠিক করা হবে। একই সঙ্গে খেজুরের ট্যারিফ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। দেশে এখন চালের কোনো সংকট নেই।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা আমাকে বলেছেন, আগে বিভিন্ন জাহাজ থেকে মাল আসত। তাদের পণ্য সরাসরি সারা বাংলাদেশে সরবরাহ করা হতো। কিন্তু এখন যারা জাহাজের মালিক তারাই মিলের মালিক, তারাই সরবরাহকারী। তারা যেন এককভাবে বাজার নিয়ন্ত্রণ না করতে পারে সে জন্য আমরা ব্যবস্থা নেব।

তিনি আরো বলেন, ‘খাতুনগঞ্জ, মৌলভীবাজার, বাদামতলীসহ যাদের হোলসেল মার্কেট রয়েছে তারাও যেন পণ্য আমদানি করে সরবরাহ ঠিক রাখতে পারে আমরা সেই ব্যবস্থা করব। কোনো কম্পানির কাছে আমাদের পুরো সরবরাহ ব্যবস্থা যাতে জিম্মি হয়ে না থাকে সেই ব্যবস্থা করব। আমাদের টিসিবি একটা উল্লেখযোগ্য ব্যবস্থা পালন করবে।

জনপ্রিয় সংবাদ

রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৬:৩২:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু বলেছেন, ‘আসন্ন রমজানে কোনো পণ্যের সংকট হবে না। ভারতসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ রাখতে পারি সে জন্য আমরা কাজ করব। ইতিমধ্যে পেঁয়াজ ও চিনি সরবরাহে ভারত রাজি হয়েছে।’ আজ শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে নিজ বাসভবনে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে চারটি পণ্যের ক্যারিট (আমদানি শুল্ক) কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ সপ্তাহে আমদানিকারক ও যারা তৈরি করে তাদের সঙ্গে বসে তেলের দাম ঠিক করা হবে। একই সঙ্গে খেজুরের ট্যারিফ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। দেশে এখন চালের কোনো সংকট নেই।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা আমাকে বলেছেন, আগে বিভিন্ন জাহাজ থেকে মাল আসত। তাদের পণ্য সরাসরি সারা বাংলাদেশে সরবরাহ করা হতো। কিন্তু এখন যারা জাহাজের মালিক তারাই মিলের মালিক, তারাই সরবরাহকারী। তারা যেন এককভাবে বাজার নিয়ন্ত্রণ না করতে পারে সে জন্য আমরা ব্যবস্থা নেব।

তিনি আরো বলেন, ‘খাতুনগঞ্জ, মৌলভীবাজার, বাদামতলীসহ যাদের হোলসেল মার্কেট রয়েছে তারাও যেন পণ্য আমদানি করে সরবরাহ ঠিক রাখতে পারে আমরা সেই ব্যবস্থা করব। কোনো কম্পানির কাছে আমাদের পুরো সরবরাহ ব্যবস্থা যাতে জিম্মি হয়ে না থাকে সেই ব্যবস্থা করব। আমাদের টিসিবি একটা উল্লেখযোগ্য ব্যবস্থা পালন করবে।