ঢাকা ০৪:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিল গ্রিস

  • ফখরুল ইসলাম
  • আপডেট সময় ১২:২১:১০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • 85

সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিল গ্রিস

গ্রিস প্রথম খ্রিস্টান অর্থোডক্স সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হয়ে সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিয়েছে। গ্রিসের পার্লামেন্ট সমকামী বিবাহের অনুমতি দেওয়ার বিল অনুমোদন করেছে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার পার্লামেন্টে এই নতুন আইনটি অনুমোদন পায়। এর অধীনে সমকামী দম্পতিরা বিয়ে ও সন্তান দত্তক নেওয়ার অনুমতি পাবে।

গ্রিস প্রথম অর্থোডক্স খ্রিস্টান দেশগুলোর মধ্যে প্রথম, যারা সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিল। দেশটির ৩০০ আসনের সংসদে ১৭৬ জন আইনপ্রণেতা বিলটির পক্ষে ভোট দিয়ে অনুমোদন করে। এখন এটি সরকারি গেজেটে প্রকাশিত হলে আইনে পরিণত হবে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী কিরিয়াকোস মিৎসোটাকিস বলেছেন, ‘নতুন আইন অসমতা দূর করবে।

এদিকে নতুন আইন দেশকে দুই ভাগে বিভক্ত করে ফেলেছে। অর্থোডক্স চার্চের নেতৃত্বে এই নতুন আইনের তীব্র বিরোধিতা করে এথেন্সে প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। রাজধানীর সিনটাগমা স্কোয়ারে এই আইনের বিরুদ্ধে ব্যানার প্রদর্শন করেন অনেকে এবং কেউ কেউ বাইবেলের অনুচ্ছেদ গেয়ে শোনান। অর্থোডক্স চার্চের প্রধান আর্চবিশপ আইরনিমোস বলেছেন, ‘এই ব্যবস্থা মাতৃভূমির সামাজিক সংহতিকে কলুষিত করবে।

ভোটের আগে দেশটির প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছিলেন, ‘অদৃশ্য মানুষরা অবশেষে আমাদের চারপাশে দৃশ্যমান হবে এবং তাদের সঙ্গে অনেক শিশুও তাদের সঠিক জায়গা খুঁজে পাবে।’ এদিকে গ্রিসের এলজিবিটিকিউ সংস্থাগুলো এই আইনকে স্বাগত জানিয়েছে। সমলিঙ্গের অভিভাবকদের গ্রুপ ‘রেইনবো ফ্যামিলিজ’-এর প্রধান স্টেলা বেলিয়া বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, এটি একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত। এটি আনন্দের দিন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৭ সদস্যের মধ্যে ১৫ সদস্য ইতিমধ্যেই সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিয়েছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিল গ্রিস

আপডেট সময় ১২:২১:১০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গ্রিস প্রথম খ্রিস্টান অর্থোডক্স সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হয়ে সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিয়েছে। গ্রিসের পার্লামেন্ট সমকামী বিবাহের অনুমতি দেওয়ার বিল অনুমোদন করেছে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার পার্লামেন্টে এই নতুন আইনটি অনুমোদন পায়। এর অধীনে সমকামী দম্পতিরা বিয়ে ও সন্তান দত্তক নেওয়ার অনুমতি পাবে।

গ্রিস প্রথম অর্থোডক্স খ্রিস্টান দেশগুলোর মধ্যে প্রথম, যারা সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিল। দেশটির ৩০০ আসনের সংসদে ১৭৬ জন আইনপ্রণেতা বিলটির পক্ষে ভোট দিয়ে অনুমোদন করে। এখন এটি সরকারি গেজেটে প্রকাশিত হলে আইনে পরিণত হবে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী কিরিয়াকোস মিৎসোটাকিস বলেছেন, ‘নতুন আইন অসমতা দূর করবে।

এদিকে নতুন আইন দেশকে দুই ভাগে বিভক্ত করে ফেলেছে। অর্থোডক্স চার্চের নেতৃত্বে এই নতুন আইনের তীব্র বিরোধিতা করে এথেন্সে প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। রাজধানীর সিনটাগমা স্কোয়ারে এই আইনের বিরুদ্ধে ব্যানার প্রদর্শন করেন অনেকে এবং কেউ কেউ বাইবেলের অনুচ্ছেদ গেয়ে শোনান। অর্থোডক্স চার্চের প্রধান আর্চবিশপ আইরনিমোস বলেছেন, ‘এই ব্যবস্থা মাতৃভূমির সামাজিক সংহতিকে কলুষিত করবে।

ভোটের আগে দেশটির প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছিলেন, ‘অদৃশ্য মানুষরা অবশেষে আমাদের চারপাশে দৃশ্যমান হবে এবং তাদের সঙ্গে অনেক শিশুও তাদের সঠিক জায়গা খুঁজে পাবে।’ এদিকে গ্রিসের এলজিবিটিকিউ সংস্থাগুলো এই আইনকে স্বাগত জানিয়েছে। সমলিঙ্গের অভিভাবকদের গ্রুপ ‘রেইনবো ফ্যামিলিজ’-এর প্রধান স্টেলা বেলিয়া বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, এটি একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত। এটি আনন্দের দিন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৭ সদস্যের মধ্যে ১৫ সদস্য ইতিমধ্যেই সমকামী বিয়েকে বৈধতা দিয়েছে।